ওষুধেও মরছে না মশা

ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ওষুধেও মরছে না মশা

কার্যকর উদ্যোগ নিন

সম্পাদকীয় ৮:১৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৪, ২০১৯

print
ওষুধেও মরছে না মশা

মশা নিয়ে উদ্বেগের অবসান হচ্ছে না। দেশজুড়ে হাজার হাজার মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছেন। অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন অনেকেই। মশক নিধন কার্যক্রমে শুরুতে গতি না থাকলেও বাধ্য হয়ে কর্তৃপক্ষ সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে। এরপর দেখা গেল ওষুধ প্রয়োগে মশা নিধন হচ্ছে না। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে নতুন ওষুধ আনার কথাবার্তা, তা আনাও হলো। আর ওষুধের কার্যকারিতা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার পর তা প্রশ্নবিদ্ধ হলো। একপর্যায়ে ওষুধ পরীক্ষা করতে গিয়ে দেখা গেল, আসলেই সেই ওষুধ দিয়ে মশা মরছে না। তাহলে, উপায় কী?

খোলা কাগজের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সম্প্রতি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে নতুন ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে জানতে পরীক্ষা চালানো হয়। সেখানে দেখা যায়, মাত্র তিন ফুট দূর থেকে বন্দি মশাকে লক্ষ্য করে ওষুধ ছিটানো হলেও তার ৭৮ ভাগই মরেনি। অর্থাৎ, মশক নিধনে যে ওষুধ ব্যবহারের পরিকল্পনা হচ্ছে তা কার্যকর নয়। আর নতুন করে আরও যে সব ওষুধ আনার কথা হচ্ছে তা নিয়েও দ্বিধাদ্বন্দ্ব থাকছে। কারণ, বিষাক্ত ওষুধে জীব ও পরিবেশের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে পরীক্ষা করা ওষুধ এবং নতুন ওষুধ আনার ব্যপারেও ধোঁয়াশা থেকে যাচ্ছে। প্রতিবেশী রাষ্ট্র থেকে বিশেষজ্ঞ আনা এবং সময় নিয়ে ওষুধ গবেষণা করতে যত সময় পার হবে ততদিনে ডেঙ্গু পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ডেঙ্গু প্রভাব থেকে কোনো জেলা-উপজেলা মুক্ত নয়। এরই মধ্যে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। প্রতিদিনই ডেঙ্গুতে মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছেন কেউ না কেউ। তারপরও মশক নিধনে পদক্ষেপের ঘাটতি থেকে গেছে। শুরু থেকেই ডেঙ্গুর প্রভাব দমিয়ে রাখা গেলে তা দেশব্যাপী ব্যাপকহারে ছড়াতো না নিঃসন্দেহে। কিন্তু তা হয়নি, এখন ওষুধ নিয়েও চলছে টালবাহানা। এই প্রকোপ যখন দেশব্যাপী ছড়িয়ে গেল তখনই টনক নড়ল সংশ্লিষ্টদের। অথচ, এমনটি হওয়া কারও প্রত্যাশিত ছিল না।

শুধু ডেঙ্গু নয়, এমন অনেক চরম পরিস্থিতিতেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে হেলদোল ছাড়া দেখা যায়। সরকার প্রতিটি বিষয় নিয়ে মাথা ঘামালেও অনেক কিছুই ঠিকঠাক মতো হয় না। তাছাড়া, প্রশাসনের সঙ্গে অসামঞ্জস্যতার কারণেও এমনটি হতে পারে। এই পর্যায়ে দেশ থেকে ডেঙ্গুবাহী এডিস মশা দূর করাই বড় চ্যালেঞ্জ। আমরা মনে করি, সরকার পক্ষ এবার সদয় দৃষ্টি দিয়ে একটি কার্যকর ওষুধ ব্যবহার করে ডেঙ্গু নির্মূল করবে।

রাজধানীর সঙ্গে সারা দেশের স্থানীয় সরকার প্রশাসনকেও পর্যাপ্ত সুযোগ দিতে হবে। আর দেরি নয়, আর অকালে প্রাণ বিসর্জন নয়; দ্রুত দেশব্যাপী এমন ওষুধ প্রয়োগ করে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে যা নিরাপদ এবং কার্যকর।