কিছুতেই কাটছে না বাজারের অস্থিরতা

ঢাকা, সোমবার, ৮ মার্চ ২০২১ | ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭

কিছুতেই কাটছে না বাজারের অস্থিরতা

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১

print
কিছুতেই কাটছে না বাজারের অস্থিরতা

নিত্যপণ্যের বাজারের অস্থিরতা কিছুতেই কাটছে না। চাল-তেলের দাম আকাশছোঁয়া। এতে চরম ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। বেশ কয়েক দিন ধরে ব্যাপক চড়া চালের বাজার। গত সপ্তাহের তুলনায় বাজারে সরু বা চিকন চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ১-২ টাকা। বরাবরের মতো পাইকার-মিল মালিক একে অপরকে দুষছে। সয়াবিন তেলের দামও গত সপ্তাহের চেয়ে বেড়েছে লিটারে ২ টাকা করে। শুধু তা-ই নয়, সরকার ভোজ্যতেলের মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়ার দুদিন পার হয়ে গেলেও বাজারে এর কোনো প্রভাব দেখা যায়নি। দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ব্রয়লার মুরগি। এক সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা। তবে কমেছে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম। আগের দামে রয়েছে শাকসবজি। সরবরাহ ভালো মাছের বাজারেও। তাই কমেছে দামও। ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলে সামনের দিনে চাল, তেল, পেঁয়াজসহ সব ধরনের কাঁচাপণ্যের দাম আরও কমবে। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর রামপুরা, মালিবাগ, মালিবাগ রেলগেট বাজার, কারওয়ানবাজার, কাঁঠালবাগান বাজার ঘুরে এসব চিত্র দেখা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চিকন সব ধরনের চালের দাম বেড়েছে। সয়াবিন তেলের দামও গত সপ্তাহের চেয়ে বেড়েছে লিটারে ২ টাকা করে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা। আর এক মাসে বেড়েছে ৩০ টাকা।

মুরগি ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত এক মাসে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে অন্তত ৩০ টাকা। এক মাস আগে ব্রয়লার মুরগির দাম ছিল ১২০ টাকা কেজি। বর্তমানে সেই মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৫৫ টাকা কেজিতে। সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির হিসাবে, গত এক মাসে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে ১১ শতাংশ। সোনালিকা জাতের মুরগির দাম উঠেছে কেজিপ্রতি ২৬০ টাকায়। ফার্মের মুরগির ডিমের দাম প্রতি ডজন ৯০ টাকা। গত সপ্তাহের তুলনায় বাজারে সরু বা চিকন চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ১-২ টাকা। গত সপ্তাহে যে চাল ৬২ টাকা ছিল, গতকাল সেই চাল বিক্রি হচ্ছে ৬৪ টাকা দরে।

আরও জানা গেছে, পেঁয়াজের পাইকারি দাম গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিপ্রতি ৩-৫ টাকা কমেছে। খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ এখন ২৬-৩২ টাকা। বাজারে আলু বিক্রি হচ্ছে ১৫-২০ টাকা। আর বেশিরভাগ শীতের সবজি আগের মতোই ২০-৩০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। অবশ্য বাজারে আসতে শুরু করা গ্রীষ্মের আগাম সবজির দাম চড়া। পটল ও ঢেঁড়সের দাম প্রতি কেজি ৮০-১০০ টাকা। এছাড়া লেবু ৫০-৬০ টাকা হালি, ফুলকপি ও ব্রকলি ২০ টাকা পিস, বাঁধাকপি ও লাউ ৩০ টাকা পিস হিসেবে বিক্রি হচ্ছে।
কাওরানবাজারের চাল ব্যবসায়ী মফিজুল ইসলাম বলছেন, সরবরাহ জনিত কারণে সরু বা চিকন চালের দাম গত সপ্তাহের চেয়ে কেজিতে ২ টাকা বেড়েছে।

ভোজ্যতেল ব্যবসায়ী অহিদুল হক বলেন, সরবরাহ কম থাকায় দাম বেড়েছে। গত এক মাস ধরে পণ্যটির দাম বেড়েই চলেছে।
টিসিবি বলছে, গত এক বছরে সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ৪০ শতাংশ। এর মধ্যে খোলা পাম অয়েলের দাম বেড়েছে ৪২ শতাংশ। আর খোলা সয়াবিনের দাম বেড়েছে ৩৫ শতাংশ। পাম অয়েল সুপারের দাম বেড়েছে ৩৭ শতাংশ। আর ৫ লিটার বোতলের সয়াবিনের দাম বেড়েছে ২৫ শতাংশ এবং এক লিটার বোতলের দাম বেড়েছে ২৮ শতাংশ।

রামপুরার বাসিন্দা সাব্বির রহমান বলেন, সয়াবিন কিনতে হচ্ছে ১৩৫ টাকায়। যা গত বছর ছিল ১০০ টাকা লিটার। নিয়মিত বাজার মনিটরিংকে দোষছেন ক্রেতারা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ পাইকারি ভোজ্যতেল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী গোলাম মাওলা বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমার কারণে আমাদের পাইকারি বাজারেও সয়াবিন তেলের দাম কিছুটা কমতির দিকে। অবশ্য এখন তেলের সরবরাহ তুলনামূলক কম। এ কারণে দাম যেভাবে বেড়েছে সেভাবে কমছে না।