বাজেটে করোনার বোঝা সুদ ভর্তুকি বাড়ছে

ঢাকা, বুধবার, ৮ জুলাই ২০২০ | ২৪ আষাঢ় ১৪২৭

বাজেটে করোনার বোঝা সুদ ভর্তুকি বাড়ছে

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক ৮:২৪ পূর্বাহ্ণ, মে ৩১, ২০২০

print
বাজেটে করোনার বোঝা সুদ ভর্তুকি বাড়ছে

করোনারভাইরাসের আঘাত মোকাবেলায় ঘোষিত প্রণোদনার বোঝা যুক্ত হতে যাচ্ছে আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে। করোনা মহামারি মোকাবেলায় ব্যাংকগুলোর কাছে থেকে উদ্যোক্তারা যে ঋণ পাবেন তাতে সরকার সুদ ভর্তুকি হিসাবে যে অর্থ দেবে তা উন্নয়ন বাজেট হিসেবে যুক্ত হবে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের একটি দায়িত্বশীল সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

চলতি বাজেটে সবচেয়ে বেশি অর্থ ব্যয় ধরা হয়েছে সুদ ব্যয়ে, ৫৭ হাজার ৬৮ কোটি টাকা বা ১৮.৩ শতাংশ। আর আগামী অর্থবছরের বাজেটে এ ব্যয় আরও এক ধাপ বাড়িয়ে ৬৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ধরা হচ্ছে। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের তুলনায় আগামী অর্থবছরে এ খাতে ছয় হাজার ৪৩২ কোটি টাকা ব্যয় বাড়ছে। এর আগে এত বেশি ব্যয় এ খাতে আর কখনো ধরা হয়নি।

মূলত করোনাভাইরাসের কারণে রাজস্ব আয় নিয়ে শঙ্কা এবং অর্থনীতি টিকিয়ে রাখতে সরকারের দেওয়া এক লাখ কোটি টাকার বেশি প্রণোদনার ব্যয়ভার মেটাতে এ পরিমাণ সুদ ব্যয় ধরা হচ্ছে। তা ছাড়া আগামী অর্থবছরের বাজেট ঘাটতি মেটাতে সরকারের মূল ভরসা হচ্ছে ব্যাংকঋণ।

কারণ, নানা বিধি-নিষেধ আরোপ ও করোনাভাইরাসের প্রভাবে সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে ভাটা পড়েছে। আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে সরকার ব্যাংক থেকে ৭২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য স্থির করেছে। চলতি বাজেটে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৪৭ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা। যদিও সংশোধিত বাজেটে তা বাড়িয়ে ৭২ হাজার ৯৫৩ কোটি টাকা করা হয়।

বাজেট বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সুদ খাতে সরকারের ব্যয় হয়েছে ৫১ হাজার ৩৩৮ কোটি টাকা। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে এ খাতে ৫৭ হাজার ৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে সুদ পরিশোধে ব্যয় বেড়েছে পাঁচ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরে রাখা হচ্ছে ৬৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে সুদ পরিশোধে ব্যয় হয়েছে ৪১ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৩৫ হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ব্যয় হয় ৩১ হাজার ৬৬৯ কোটি টাকা।

বাজেটে অনুন্নয়ন ব্যয়ের চাপ বাড়ছে। প্রতিবছর রাজস্ব বাজেটের বিরাট একটি অংশ সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা এবং সুদ ব্যয়ে খরচ হবে। ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে এ সুদ ব্যয় নতুন মাত্রা পাচ্ছে। এ সুদ মূলত উদ্যোক্তারা প্রণোদনার সুদ ভর্তুকি বাবদ যুক্ত হবে। করোনা মোকাবেলার জন্য উদ্যোক্তারা সাড়ে ৪ শতাংশ ঋণ পাবে। এ ঋণের সাড়ে চার শতাংশ হিসাবে দেবে সরকার।