খেলাপি ঋণের পাশাপাশি প্রভিশন ঘাটতি বেড়েছে

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

খেলাপি ঋণের পাশাপাশি প্রভিশন ঘাটতি বেড়েছে

জাফর আহমদ ১০:১১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৮, ২০১৯

print
খেলাপি ঋণের পাশাপাশি প্রভিশন ঘাটতি বেড়েছে

খেলাপী ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলো প্রয়োজনীয় প্রভিশন সংরক্ষণ (নিরাপত্তা সঞ্চিতি) করতে পারছে না। মন্দ ঋণ বৃদ্ধি পাওয়ায় এক বছরের ব্যবধানে নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন ঘাটতিও বৃদ্ধি পেয়েছে। এক বছরে ঘাটতি বেড়েছে ২ কোটি টাকা। তবে কিছু ব্যাংকের উদ্বৃত্ত থাকায় গত প্রান্তিকের তুলনায় চলতি প্রান্তিকে ঘাটতি কিছুটা কমেছে।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, ৬২ হাজার ৪৬৪ কোটি টাকা প্রয়োজনীয়তার বিপরীতে সেপ্টেম্বর শেষে ৫৪ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা প্রভিশন রেখেছে ব্যাংকগুলো। এতে ঘাটতি দেখা দিয়েছে ৮ হাজার ১২৯ কোটি টাকা। তবে জুন মাসের তুলনায় ১ হাজার ৯০ কোটি টাকা প্রভিশন ঘাটতি কমেছে সেপ্টেম্বরে। চলতি বছরের জুন শেষে মোট প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণ ছিল ৯ হাজার এক ২১৯ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যান মতে, গত সেপ্টেম্বর শেষে ব্যাংকিং খাতে নিট প্রভিশন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে প্রায় ৮ হাজার ১২৯ কোটি টাকা। আগের বছরের একই সময়ে যা ছিল ৮ হাজার ১২৭ কোটি টাকা।

এর মধ্যে ১৩টি ব্যাংকের মোট ৯ হাজার ৪৭ কোটি ৫৯ লাখ টাকার প্রয়োজনীয় প্রভিশন সংরক্ষণ করতে পারেনি। যা সরকারি ৩টি ব্যাংকের ৬ হাজার ৪৩৯ কোটি টাকা, বেসরকারি খাতের ৯টি ব্যাংকের ২ হাজার ১৪৮ কোটি টাকা ও একটি বিদেশি খাতের বাণিজ্যিক ব্যাংকে ১৫৬ কোটি টাকা রয়েছে। এছাড়া বিশেষায়িত ব্যাংক খাতে ৩০২ কোটি টাকা প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে। ব্যাংকিং খাতে প্রভিশন ঘাটতি বেড়ে যাওয়ায় বেড়ে যাচ্ছে ঝুঁকি।

সূত্রমতে, আমানতকারীদের আমানত ব্যাংকের আর্থিক ঝুঁকি থেকে রক্ষার জন্য পর্যাপ্ত মূলধন রাখার বিধান রয়েছে। একই কারণে খেলাপী ঋণের বিপরীতে পর্যাপ্ত মূলধন রাখারও বিধান রয়েছে। কিন্তু ঋণের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ খেলাপী হওয়ায় এবং সে অনুযায়ী প্রভিশন সংরক্ষণ না করায় ব্যাংকগুলোর আর্থিক ঝুঁকি বেড়েছে। বিশেষ করে রাষ্ট্রায়ত্ত ও সরকার পরিচালিত বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোতে এ ঝুঁকির প্রবণতা বেড়েছে বেশি।

বিশ্লেষকেদের মতে, খেলাপি ঋণ বেড়ে গেলে ব্যাংকগুলো আর্থিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ে। তারা বলেন, ব্যাংকিং খাতে খেলাপি বাড়ার কারণেই প্রভিশন ঘাটতি বেড়েছে। যে সব ব্যাংক প্রয়োজনীয় প্রভিশন সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছে তাদের মূলধন ঘাটতি হওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে। এজন্য সম্ভাব্য পরিস্থিতি মোকাবেলায় ঋণ খেলাপিদের কাছ থেকে জনগণের আমানত ফিরিয়ে আনার কঠোর উদ্যোগ নিতে হবে।

জানা গেছে, ঋণ শ্রেণীকরণের তিনটি পর্যায় রয়েছে। তা হলো, নিম্নমান, সন্দেহজনক ও মন্দ বা ক্ষতি। এই তিনটি পর্যায় বিবেচনায় নিয়ে ব্যাংকগুলোকে নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) সংরক্ষণ করতে হয়।

প্রভিশন সংরক্ষণের নীতিমালা অনুযায়ী, কোনো ঋণ নিম্নমান হলে তার বিপরীতে ব্যাংকগুলোকে ২০ শতাংশ প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। আর পরপর ছয় মাস ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হলে সে ঋণকে সন্দেহজনক ঋণ বলা হয়। আর এ ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলোকে ৫০ শতাংশ প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। আর ৯ মাস অতিবাহিত হলে ওইসব ঋণকে মন্দ ঋণ বলা হয়। আর এ মন্দ ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলোর শতভাগ প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। আর এ প্রভিশন সংরক্ষণ করা হয় ব্যাংকের আয় খাত থেকে টাকা এনে।

যে ব্যাংকের খেলাপী ঋণ যত বেশি ওই ব্যাংকের আয় খাত থেকে বেশি পরিমাণ প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। আর বেশি প্রভিশন সংরক্ষণ করলে ওই ব্যাংকের মুনাফা কমে যায়।

প্রভিশন ঘাটতি বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে একজন ব্যাংককার জানিয়েছে, ব্যাংকিং খাতে ইচ্ছেকৃত খেলাপী ঋণ বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি ব্যবসা মন্দা, ব্যাংকিং খাতে ঋণ কেলেঙ্কারি ও চলমান পরিস্থিতিতে ব্যাংকের এবার পরিচালন মুনাফা কমেছে। বেড়েছে ব্যাংকের খেলাপী ঋণ। সব মিলিয়ে এবার ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা কমে গেছে। এর ওপর অতিরিক্ত প্রভিশন রাখতে গিয়ে অনেক ব্যাংকের প্রকৃত মুনাফা না হয়ে লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছে বলে ওই কর্মকর্তা মনে করেন।