দরপতন চলছেই

ঢাকা, বুধবার, ২২ মে ২০১৯ | ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

দরপতন চলছেই

নিজস্ব প্রতিবেদক ২:৫৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০১৯

print
দরপতন চলছেই

ব্যাংকের ঋণ আমানত অনুপাত (এডিআর) সমন্বয়ের সময় ছয় মাস বাড়ানো হলেও দরপতন থামছে না দেশের শেয়ারবাজারে। বরং টানা দরপতন দেখা দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৭৫ শতাংশের বেশি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে। দুই বাজারেই ব্যাংক, বীমা, আর্থিক খাতসহ সবক’টি খাতের সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমায় পতন হয়েছে প্রধান মূল্যসূচকের। এর মাধ্যমে টানা দুই কার্যদিবস দরপতন ঘটল।

তবে প্রধান সূচকের পতনের মধ্যেও দুই বাজারেই বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। সেই সঙ্গে ডিএসইতে বেড়েছে বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক। এদিন মূল্যবৃদ্ধির তালিকায় নাম লিখিয়েছে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া মাত্র ৬০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট। বিপরীতে দাম কমেছে ২৬১টির। অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টির দাম। এতে ডিএসইর প্রধান মূল্যবৃদ্ধি ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৮ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৬৮২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

অপর দুটি মূল্যসূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ সূচক আগের দিনের তুলনায় ৫ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩০৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। তবে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দরপতনের মধ্যেও ডিএসই-৩০ আগের দিনের তুলনায় ১৪ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ১৩ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এদিকে দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৬২১ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ৫০৬ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। সে হিসাবে আগের কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে ১১৫ কোটি ১৫ লাখ টাকা। এ লেনদেন বৃদ্ধির ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা রেখেছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো (ব্যাটবিসি) কোম্পানি। কোম্পানিটির ৭৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকোর পরই টাকার অঙ্কে লেনদেনে রয়েছে মুন্নু সিরামিক। ডিএসইতে এ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪১ কোটি ১২ লাখ টাকার। ৩৬ কোটি ১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে এর পরেই রয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন। লেনদেনে এরপর রয়েছে- ডাচ-বাংলা ব্যাংক, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস, সিঙ্গার বাংলাদেশ, গ্রামীণফোন, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল, ন্যাশনাল পলিমার এবং ফরচুন সুজ।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্যসূচক সিএসসিএক্স ২৬ পয়েন্ট কমে ১০ হাজার ৫৫৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১৯ কোটি ১০ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ২৬১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪৪টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৯৭টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির।