দৌলতদিয়া নৌরুট পারাপারের অপেক্ষায় শতশত গাড়ি, তীব্র যানজট সৃষ্টি

ঢাকা, রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

দৌলতদিয়া নৌরুট পারাপারের অপেক্ষায় শতশত গাড়ি, তীব্র যানজট সৃষ্টি

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি
🕐 ৩:৪৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২১

দৌলতদিয়া নৌরুট পারাপারের অপেক্ষায় শতশত গাড়ি, তীব্র যানজট সৃষ্টি

দীর্ঘ ছয় কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ২১ জেলার প্রবেশদ্বার হিসাবে খ্যাত বাংলাদেশের ব্যস্ততম নৌরুট রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া নৌপথ। পারের অপেক্ষায় রয়েছে শত-শত দূরপাল্লার যাত্রীবাহি বাস, কার্ভার্ডভ্যান ও পন্যবাহী ট্রাক। গতকাল সোমবার (১৮ ই অক্টোবর) সন্ধ্যার পর থেকেই পন্যবাহী ট্রাকের সাথে দুরপাল্লার বাসের সংখ্যা বাড়তে থাকলে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

অপরদিকে, ঘাট এলাকায় যানজট কমাতে ঘাট থেকে সাড়ে ১৩ কিলোমিটার পেছনে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের গোয়ালন্দ মোড় থেকে কল্যাণপুর বাজার পর্যন্ত দুই কিলোমিটার এলাকায় খোলা আকাশের নীচে দীর্ঘ সময় ধরে অপচনশীল পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে আটকে রাখা হয়েছে।

গুরুত্বপূর্ণ ওই নৌপথে চলাচলকারি অনেক ফেরি ঘন ঘন ফেরি বিকল হয়ে পড়ে। পানির গভীরতা কমে নৌ চ্যানেলের বিভিন্ন পয়েন্টে ডুবোচর ও নাব্যতা সংকট সৃষ্টি হয়েছে। দৌলতদিয়া প্রান্তে ৭ টি ফেরিঘাটের মধ্যে ৩ টি ঘাট বন্ধ রয়েছে। পাশাপাশি অতিরিক্ত গাড়ির চাপ বেড়ে দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া উভয় ঘাটে যানজট লেগেই রয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) মঙ্গলবার সকালে দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া ঘাট ঘুরে দেখা যায়, দৌলতদিয়া প্রান্তে ফেরিঘাট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ ভবন পর্যন্ত প্রায় পাচ কিলোমিটার যানজট। যানজটে পণ্যবাহী গাড়ির সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা বিভিন্ন ধরনের দূরপাল্লার পরিবহন রয়েছে। এর বেশির ভাগ পরিবহন আগের দিন গতকাল রাতে আসা। রাতের দূরপাল্লার পরিবহন পরের দিন সকালে পার হচ্ছে। পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের নদী পার হতে আরও বেশি সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে। গাড়িতেই নির্ঘুম রাত কাটিয়ে ক্লান্ত হয়ে পড়ছেন চালক–যাত্রীরা।


বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথের বহরে ছোট-বড় মিলে মোট ২০টি ফেরি রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা ও বিশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান নামের দুটি ফেরি বিকল হয়ে আছে। পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা ওই ফেরি দুটির মেরামত কাজ চলছে। প্রতিটি রো রো (বড়) ফেরি চলাচলের জন্য কমপক্ষে ৮ ফিট পানির গভীরতা প্রয়োজন। কিন্তু নৌ-চ্যানেলের বিভিন্ন পয়েন্টে ডুবোচরের পাশাপাশি নাব্যতা সংকট সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া উভয় ঘাটের বেসিন চ্যানেলে এখন নাব্যতা সংকট সবচেয়ে বেশি। পানির গভীরতা না থাকায় বড় ফেরিগুলো মারাত্মক ঝুঁকির মুখে চলাচল করছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয় জানায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ২০টি ফেরি আছে। একটি রো রো ফেরি ভাষাসৈনিক গোলাম মাওলাকে গত বুধবার আরিচা ও কাজিরহাট নৌপথে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বাকি ১৯টি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। এ ছাড়া দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়ায় ঘাট স্বল্পতাও রয়েছে।

এদিকে, দৌলতদিয়ায় মোট সাতটি ফেরিঘাট রয়েছে। এর মধ্যে ১, ২ ও ৩ নম্বর তিনটি ঘাট বন্ধ রয়েছে। চালু থাকা অপর চারটি ঘাটের মধ্যে শুধুমাত্র ৫ ও ৭ নম্বর ঘাটে রয়েছে তিন পকেটবিশিষ্ট পন্টুন। চলাচলকারি বড় ফেরিগুলো শুধুমাত্র ওই দুটি ঘাটেই ভিরতে পারছে। ছোট ফেরিগুলো ভিরছে এক পকেট বিশিষ্ট ৪ ও ৬ নম্বর ঘাট পন্টুনে। ৭ টি ঘাটের মধ্যে তিনটি ঘাট বন্ধ থাকায় নৌপথের দৌলতদিয়া প্রান্তে ঘাটসংকট সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে ফেরিতে ভারি যানবাহন পারাপার বন্ধ থাকায় অতিরিক্ত গাড়ির চাপ বেড়েছে দৌলতদিয়া- পাটুরিয়া নৌপথে। ফলে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে যানবাহনের তীব্র যানজট লেগেই রয়েছে।

ঘাটসংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানাযায়, দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে প্রয়োজনীয় ঘাট সংকট, ঘন ঘন ফেরি বিকল ও নাব্যতা সংকটের কারণে নৌপথে স্বাভাবিক ফেরিপারাপার ব্যাহত হচ্ছে। ফলে সামান্য এই নৌপথ নদীপার হতে এসে গাড়িগুলো ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাটেই পড়ে থাকতে হচ্ছে। ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় দীর্ঘ সময় আটকে থাকায় বাসের যাত্রী, চালক, মূমুর্স রোগী, বিশেষ করে নারী ও শিশুরা সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মো. জামাল হোসেন বলেন, দৌলতদিয়ার সাতটি ঘাটের মধ্যে চালু রয়েছে পাঁচটি। বাকি ১ ও ২ নম্বর ঘাট দুই বছর আগে নদীভাঙনের কবলে পড়ায় এখনো চালু হয়নি। বাকি পাঁচটি ঘাটের মধ্যে গতকাল ৩ নম্বর ছোট ফেরির পন্টুন সরিয়ে সেখানে রো রো ফেরির পন্টুন বসানো হয়। এ ছাড়া মাঝেমধ্যে ৭ নম্বর ঘাটের কাছে পকেট বন্ধ রেখে ড্রেজিং করতে হচ্ছে। সেই সঙ্গে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে ফেরি বন্ধ। এ কারণে ওই নৌপথের গাড়ি এই নৌপথ দিয়ে পারাপার হচ্ছে। এসব কারণে বাড়তি চাপ থাকছে।

 
Electronic Paper