মধুমতির ভাঙনে নিঃস্ব অর্ধশত পরিবার

ঢাকা, সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১ | ৩ কার্তিক ১৪২৮

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

মধুমতির ভাঙনে নিঃস্ব অর্ধশত পরিবার

শেখ মোস্তফা জামান, গোপালগঞ্জ
🕐 ৭:৫৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১

মধুমতির ভাঙনে নিঃস্ব অর্ধশত পরিবার

গোপালগঞ্জে মধুমতির ভাঙনে প্রতিদিন বিলীন হচ্ছে বসতভিটা, গাছপালা ও ফসলি জমি। কিন্তু গত কয়েকদিন থেকে ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। গত পাঁচদিনে ১৫টি বাড়িঘর ও শত শত একর ফসলি জমি বিলীন হয়ে গেছে নদীগর্ভে।

বসতবাড়ি হারিয়ে এখন দিশাহারা নদীর তীরের অর্ধশত পরিবার। এদিক সেদিক ছোটাছুটি করছে শেষ সম্বলটুকু রক্ষা করার জন্য। আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন তারা।

জানা গেছে, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের ইছাখালি এলাকায় মধুমতির তীব্র ভাঙনে গত পাঁচদিনে ১৫টি বাড়িঘর বিলীন হয়ে গেছে। গবাদিপশু নিয়ে খোলা আকাশের নিচে ও রাস্তার পাশে আশ্রয় নিয়েছে নদীর তীরবর্তী এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। ভাঙন আতঙ্কে অনেকে আবার গ্রাম ছেড়ে চলে যাচ্ছেন।

এছাড়া নদীর তীরবর্তী এলাকার চর গোবরা, হরিদাশপুর, ফুকরা, ঘোড়াদাইড়, চর সিংগাতি, মধুপুর এলাকাজুড়ে ভাঙন শুরু হয়েছে। অব্যাহত ভাঙনের কারণে হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে এসকল এলাকার শত শত একর ফসলি জমি। প্রতিদিন বিলীন হচ্ছে কাঁচা-পাকা রাস্তা, ঘরবাড়ি, ভিটেমাটি, গাছপালা।

নদীগর্ভে বিলীন হওয়া পরিবারগুলোর চোখ দিয়ে এখন শুধু হতাশার অশ্রু ঝরছে। নদীর দিকে শুধুই নির্বাক হয়ে চেয়ে আছে তারা। নদীর ভয়াল থাবায় বাড়িঘর জমিজমা হারিয়ে তারা এখন নিঃস্ব।

এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফইজুর রহমান বলেন, হঠাৎ করে নদী ভাঙন বেড়ে যাওয়ায় ফসলি জমি ও গাছপালা নদীগর্ভে চলে যাচ্ছে।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, এই মুহূর্তে আমরা মধুমতি নদীতে জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন প্রতিরোধ করার চেষ্টা চালাচ্ছি। যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের আর্থিকভাবে সহযোগিতা করা হবে।

 

 
Electronic Paper