জাজিরায় ৫৪ ভূমিহীন পরিবার পাচ্ছেন নতুন ঘর

ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭

জাজিরায় ৫৪ ভূমিহীন পরিবার পাচ্ছেন নতুন ঘর

শরীয়তপুর প্রতিনিধি ৪:০২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২১

print
জাজিরায় ৫৪ ভূমিহীন পরিবার পাচ্ছেন নতুন ঘর

মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ও সরকারের দেওয়া প্রতিশ্রুতি হিসেবে জাজিরা উপজেলায় ৫৪টি ভূমিহীন পরিবার আবাসন পাবেন। এর মধ্যে বিলাশপুর ৫টি মূলনা ইউনিয়নে ১৪টি, সেনেরচর ১২টি, বড়কান্দি ১০টি, গোপালপুর ৫টি, জয়নগর ২টি, পালেরচর ২টি, পূর্ব নাওডোবা ২টি সেমি পাকা ঘর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে সরকারি খাস জমিতে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্প আশ্রয়ন-২ এর আওতায় এসব ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে।

দুই শতাংশ জমিতে দুই কক্ষ বিশিষ্ট এসব ঘরে যাবতীয় সুযোগ সুবিধা রাখা হয়েছে। প্রতি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা।

গতকাল উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশরাফুজ্জামান ভূইয়া এসব তথ্য জানান।

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান মোবারক আলী সিকদার, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পারভিন আক্তার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কার্যলয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. সোহাগ, মূলনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন হাওলাদার, নাওডোবা ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবুল কাশেম বেপারী, শরীয়তপুর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি রোকনুজ্জামান পারভেজ, সাধারন সম্পাদক মো. শহিদুজ্জান খান উপস্থিত ছিলেন।

জারিরা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম জানান, দুই শতাংশ সরকারি খাস জমির ওপর এক লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে দুই কক্ষ বিশিষ্ট ওয়ালসেড ঘর, সঙ্গে পাকা ল্যাট্রিন ও রান্নাঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। নির্মাণ কাজ শেষে হয়েছে তালিকাভুক্ত ভূমিহীনদের নামে জমিসহ ঘরের দলিল আগামী ২৩ জানুয়ারী হস্তান্তর করা হবে।

জাজিরা উপজেলার নির্বাহী অফিসার মো. আশরাফুজ্জামান ভূইয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা- একটি পরিবারও গৃহহীন থাকবে না। প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মুজিববর্ষের মধ্যেই আমরা জাজিরা গৃহহীনদের ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য কাজ করছি। প্রাথমিকভাবে আমরা ৫৪টি গৃহ নির্মাণের জন্য টাকা পেয়েছি। এসব ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে এবং সুফলভোগীদের মধ্যে ২৩ তারিখে হস্তান্তর করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরও জানান, কোনো বিত্তমান ব্যক্তি কোনো ভূমিহীনকে দুই শতাংশ জায়গা দান করলে, আমরা ওই ভূমিহীনকে ঘর নির্মাণ করে দেব।

উপজেলা চেয়ারম্যান মোবারক আলী সিকদার বলেন, বিগত কয়েক বছরে জাজিরা উপজেলায় নদী ভাঙ্গনে প্রায় ২ হাজার পরিবার গৃহহীন হয়েছে, এদের অনেকে বাড়ি ঘর নির্মাণ করতে পারিনি, আশাকরি আমাদের সরকার মুজিববর্ষের ভিতরে তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা দিবে।