দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে মুক্তি পেল ১৪ কিশোরী

ঢাকা, সোমবার, ৮ মার্চ ২০২১ | ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭

দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে মুক্তি পেল ১৪ কিশোরী

রাজবাড়ী প্রতিনিধি ৬:৫৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২০, ২০২১

print
দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে মুক্তি পেল ১৪ কিশোরী

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে ১৪ জন কিশোরীকে উদ্ধার করেছে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ। বুধবার দুপুর ২টার দিকে রাজবাড়ী পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যরাতে পুলিশের একটি টিম দৌলতদিয়া পতীতাপল্লীতে অভিযান চালায়। এ সময় তালাবদ্ধ কক্ষ থেকে মানব পাচারের শিকার আরও ১১ কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া কিশোরীদের মানবেতর জীবন যাপনে বাধ্য করা হচ্ছিলো।

রাজবাড়ী, জামালপুর, রংপুর, সাতক্ষীরা, কিশোরগঞ্জ, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন জেলার ১৪ জন কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়।

এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সালাউদ্দিন (ক্রাইম), ডি আই ওয়ান সাঈদুর রহমান, ডি আই টু প্রানোবন্ধু বিশ্বাস, সদর থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীরসহ জেলায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রেস ব্রিফিংয়ে এসপি জানান, জনৈক এক ব্যাক্তির নিকট থেকে ৯৯৯ এ খবর পেয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি’র নেতৃত্বে দৌলতদিয়া পতিতা পল্লীর মধ্যে নাজমা বেগম এর বাড়ী থেকে ৩ জন কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্য মতে ওই বাড়ীর একটি গোডাউন থেকে তালাবদ্ধা অবস্থায় অন্ধকারাচ্ছন্ন গোডাউন থেকে মানব পাচারের শিকার হওয়া আরও ১১ জন কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। তারা সেখানে খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছিলো।

তারা এমন অন্ধকারে ছিলো যে সেখানে কোন মানুষ থাকে বোঝার উপায় নেই। তাদেরকে অনেকদিন ধরে জোরপূর্বক যৌন কাজে লিপ্ত করানো হতো। আমরা তাদের ১৪ জনকে উদ্ধার করেছি। এবং তাদের অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগ করে তাদেরকে অভিভাবকের নিকট আদালতের মাধ্যমে হস্তান্তর করবো। আর যাদের নাম ঠিকানা আমরা পাইনি তাদের অভিভাবকদের নাম ঠিকানা সংগ্রহ করার চেষ্ঠা চলছে। যাদের ঠিকানা পাওয়া যাবে না আদালতের মাধ্যমে তাদের সেইফ হোমে পাঠানো হবে।