রক্ষক যখন ভক্ষক

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭

রক্ষক যখন ভক্ষক

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ০২, ২০২০

print
রক্ষক যখন ভক্ষক

পুলিশ জনগণের বন্ধু। মানুষের বিপদে পুলিশ রক্ষকের ভূমিকা পালন করে। কিন্তু সে দায়িত্বের কথা ভুলে গিয়ে ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন নারায়াণগঞ্জের সোনারগাঁ থানার এএসআই আব্দুস সামাদ। তার বিরুদ্ধে এক গৃহবধূকে বিভিন্নভাবে প্রলুব্ধ করে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে গত সোমবার বিকেলে পুলিশ সুপারের কাছে ওই গৃহবধূ লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, এক বছর আগে এএসআই আব্দুস সামাদের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এ সময় আব্দুস সামাদ তার ফোন নম্বর সংগ্রহ করে বিভিন্ন সময় কথার বলার চেষ্টা করেন। স্বামীর দারিদ্র্যতার সুযোগ নিয়ে তিনি বিভিন্নভাবে আমাকে প্রলুব্ধ করতেন। বিভিন্ন সময় আর্থিক সহযোগিতা করতেন। একপর্যায়ে তার সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। স্বামী সংসার ছেড়ে তাকে বিয়ে করার জন্য প্রলুব্ধ আব্দুস সামাদ।

পরে তাকে বন্দর এলাকার ক্যাসেল রেস্টুরেন্টসহ ঢাকার বিভিন্ন আবাসিক হোটেল নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন আব্দুস সামাদ। বিষয়টি তার পরিবারে জানাজানি হলে এএসআই আব্দুস সামাদকে বিয়ের জন্য চাপ প্রয়োগ করেন তিনি। এ সময় বিয়ে করবেন এমন আশ্বাস দিয়ে গত ২৪ জুন থানার পাশে একটি ফ্লাটে নিয়ে আবারও ধর্ষণ করেন আব্দুস সামাদ। তখন বিয়ের জন্য চাপ প্রয়োগ করলে তিনি বিয়ে করবেন না জানিয়ে হত্যার হুমকি দেন।

কয়েকদিন আগে আব্দুস সামাদ তাকে ফোন করে ভাড়া বাসায় নিয়ে যান। এ সময় আব্দুস সামাদ ও তার স্ত্রী হাত পা বেঁধে শারিরীক নির্যাতন করেন। তবে এএসআই আব্দুস সামাদ বলেন, মানুষ তো কত কথা বলতে পারে। কারও সম্মানহানি করার ইচ্ছা থাকলে কত কথাই বলবে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, বিষয়টি তদন্তের জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।