ইউএনওর আন্তরিকতায় মুগ্ধ জনসাধারণ

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ইউএনওর আন্তরিকতায় মুগ্ধ জনসাধারণ

মাহবুব আলম প্রিয়, রূপগঞ্জ ১০:৫৯ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ০৫, ২০২০

print
ইউএনওর আন্তরিকতায় মুগ্ধ জনসাধারণ

স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে তৃণমুল সেবা পৌঁছুতে উপজেলা প্রশাসনের আন্তরিকতার বিকল্প নেই। উপজেলা প্রশাসন আন্তরিক হলেই জনসাধারণ পায় তার ন্যায্য অধিকার। অন্যথায় প্রশাসনের সঙ্গে দুরত্ব তৈরী হলে জনসাধারণরা হয় বঞ্চিত। ব্যতিক্রম, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগমের কর্মকান্ড।

নজিরবিহীন দৃষ্টান্তস্থাপন করে জনপ্রিয় ও আস্থার স্থান দখল করে নিয়েছেন তিনি। বাল্যবিয়ে বন্ধ, খাদ্য ও প্রসাধনীতে ভেজাল বিরোধী অভিযান, শিল্প কারখানায় ইটিপি স্থাপন, পরিবেশ দূষণরোধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা, মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোরতা, নারী ও শিশু নির্যাতন দমনে সরাসরি হস্তক্ষেপ, সাধারণ সুবিধা বঞ্চিতদের পাশে দাঁড়িয়ে সেবা প্রদান, শিক্ষার মানোন্নয়নের বিদ্যালয় ভিত্তিক পরিদর্শন ও যথা ব্যবস্থা গ্রহণ, রাস্তাঘাটের অনিয়ম হলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা, সরকারি বরাদ্দ নিয়ে নয়-ছয় করার চেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থাসহ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রূপগঞ্জের মুল সমস্যা বিভিন্ন আবাসন কোম্পানীর জোড়পূর্বক বালি ভরাট বন্ধ করার সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

ইতোমধ্যে সাধারণ মানুষের ঘর বাড়ি দখল মুক্ত করেছেন। এসব ছাড়াও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আস্থা অর্জন করেছেন। রাজনৈতিক মহলেও রয়েছে তার ভুয়সী প্রশংসা। বিগত দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনে পুরো উপজেলা ব্যাপী নানা কর্মসূচি গ্রহণ করে পরে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে নজিরবিহীন আয়োজন করে আলোচনায় আসেন তিনি। 

এদিকে, করোনা ভাইরাস মহামারী ছড়িয়ে পড়লে সরকার ঘোষিত বিধি নিষেধ বাস্তবায়ন করতে তৎপর হয়ে ওঠেন তিনি। দিন রাত যে কোন প্রয়োজনে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে তাৎক্ষনিক সমাধান মুলক ব্যবস্থা নেন। এছাড়াও আটকে পড়াদের যারা গরীব, দুঃখী ও নি¤œআয়ের মানুষ তাদের ক্ষুধা নিবারনের জন্য নিজের একমাসের বেতন ও বৈশাখি ভাতার পুরোটাই দান করেন ইউএনও মমতাজ বেগম।

এদিকে ‘আর কয়েকটা দিন থাকি বাড়ি, ফোন দিলেই পৌঁছে যাবে রূপগঞ্জ উপজেলার ইউএনও মমতজা বেগমের খাবারের গাড়ী’ এই স্লোগান নিয়ে গরীব দুস্থ অসহায় ও শ্রমজীবীদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চলছে শুরু থেকেই। এছাড়াও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভূঁইয়া ও সহকারী কমিশনার তরিকুল ইসলাম ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও রূপগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকদের সঙ্গে নিয়ে মানবিক হয়ে উপজেলার প্রতিটি অসহায়ের বাড়িতে বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন। ঘরে আটকে পড়াদের খাবার পৌঁছে দিতে নিজের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন নাম্বায় দিয়ে সরাসরি খাবার প্রাপ্তির ব্যবস্থা করেছেন। খোঁজ নিচ্ছেন অসহায়দের।

রূপগঞ্জ উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা আছমা বেগম বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম তার আন্তরিক আচরণে অফিসের পিয়ন থেকে সব কর্মকর্তা-কর্মচারির আস্থাভাজন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুর রহিম বলেন, ইউএনও অত্যন্ত আন্তরিক তবে কাজ আদায়ের ব্যাপারে তিনি যথেষ্ট কঠোর মনোভাবেরও। যা তার প্রশাসনিক দক্ষতা বটে।

রূপগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি লায়ন মীর আব্দুল আলীম বলেন, নিঃসন্দেহে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা রূপগঞ্জের জন্য সব বিষয়ে আন্তরিক। সম্প্রতি মরণঘাতী করোনার দুর্যোগে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছেন দেখছি। যা আমাদের সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখায়। একজন নারী হয়েও রাত দিন রূপগঞ্জবাসির সেবায় ইউএনও মমতাজ বেগম যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করছেন তা রূপগঞ্জবাসি শ্রদ্ধাভরে মনে রাখবেন আশা।

রূপগঞ্জ ইউএনও মমতাজ বেগম বলেন, অনুদানের পরিমানটা সামান্য। তবে দেশের নাগরিক হিসেবে অসহায়ের পাশে দাঁড়ানো আমার দায়িত্ব কর্তব্য রয়েছে। তাই এক মাসের বেতন আর বৈশাখী উৎসব ভাতা মঙ্গলবার জেলা প্রশাসক স্যারের কাছে পাঠিয়েছি। তিনি বলেন, যদি সামর্থ থাকতো তাহলে দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য তা বিলিয়ে দিতাম। দেশের এই পরিস্থিতিতে যার যতটুকু সামর্থ আছে, তা নিয়ে অসহায় মানুষগুলোর পাশে এসে দাঁড়ানোর অনুরোধ জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে রূপগঞ্জের সব সাপ্তাহিক হাট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু সরকারের সেই নিষেধাজ্ঞা মানছে না কিছু অসাধু ব্যবসায়ী। তবে এসব হাট বন্ধে

জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন জানান, দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে জেলার প্রতিটি ইউএনও নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এতে তাদের জীবন ঝুঁকি রয়েছে। সবচেয়ে ভালো কাজ করছেন রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তিনি বেতন ও ভাতা দানের ঘোষণা করে আমাদের গর্বিত করেছেন।