কিশোর গ্যাং দমনে মাঠে পুলিশ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯ | ৮ কার্তিক ১৪২৬

কিশোর গ্যাং দমনে মাঠে পুলিশ

সাজন আহম্মেদ পাপন, কিশোরগঞ্জ ৯:৪৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৫, ২০১৯

print
কিশোর গ্যাং দমনে মাঠে পুলিশ

কিশোরগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের উৎপাত দিন দিন যেন অসহনীয় হয়ে উঠছিল। প্রতি মহল্লায় তাদের উৎপাতে জনজীবনে ভীতি সঞ্চার করতো। যে কোন বয়সের নারী পুরুষরা চলাচল করতো ভয় এবং আতংক নিয়ে। কিশোরগঞ্জ শহরে গত ২ বছরে অন্তত ৪০ থেকে ৫০টি সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছিল কিশোর গ্যাং। বাড়ছিল খুনের সংখ্যাও।

সেইদিকগুলো বিবেচনা করে কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদের নেতৃত্বে কিশোরগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের অপরাধ দমনে মাঠে নেমেছে পুলিশ। কিশোর অপরাধীদের ধরতে শুরু হয়েছে মহল্লায় মহল্লায় সাঁড়াশি অভিযান। প্রতিদিন সন্ধ্যায় অভিযান শুরু করে রাত অবধি চলে এ অভিযান। প্রতি রাতেই আটক হয় ১০-১৫ জন কিশোর অপরাধী।

পুলিশ জানায়, প্রতি রাতে শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোর অপরাধীদের আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। তাদের রাতের বেলা ঘোরাঘুরির কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় যথাযথ উত্তর দিতে না পারলে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে অভিভাবকরা এসে মুচলেকা দিয়ে তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। আবার আটককৃত অনেকেই চিহ্নিত ছিনতাইকারী বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় অনেকেই শহরে বখাটের উৎপাত ও কিশোর অপরাধী বেড়ে গেছে বলে মন্তব্য করেন। সার্বিক দিক বিবেচনা করে জেলা পুলিশ বখাটেদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। এ অভিযান যেন অব্যাহত থাকে এ বিষয়েও অনেকেই দাবি উত্থাপন করেন।

সমাজ গবেষক ও মানবাধিকার কর্মী খুজিস্তা বেগম জোনাকী জানান, সাম্প্রতিক সময়ে শিশু-কিশোরদের সমাজে নানা ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। শহর ও শহরতলিতে কিশোর অপরাধীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। পুলিশের বর্তমান এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই এবং শান্তির শহর হিসেবে কিশোরগঞ্জ পুণরায় প্রতিষ্ঠিত হোক।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক জানান, প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ পৌরসভার হারুয়া, ফিশারি রোড, নরসুন্দা লেকপাড়, গাইটাল, বত্রিশ, নিউটাউন, শোলাকিয়া, মনিপুরঘাট, সতাল, উকিলপাড়া, রথখলা, বড়পুল বিশ্বরোড, নগুয়া, হয়বতনগর, আলোরমেলা, বয়লা, কলাপাড়া এলাকাসহ অন্যান্য এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ জানান, শহরের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি শতভাগ নিশ্চিত করতে কিশোরগঞ্জ মডেল থানাকে কিশোর অপরাধী ও তাদের নেপথ্যে থাকা নায়কদের আটক করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে কয়েকজনকে আটক করে ইতিবাচক ফল পাওয়া গেছে।

তিনি আরও জানান, ‘কিছু নিরপরাধ ব্যক্তি ধরা পড়বে। এতে চিন্তার কিছু নেই। জিজ্ঞাসাবাদে নিরপরাধ প্রমাণ হলে ছেড়ে দেওয়া হবে।’