টেঁটাযুদ্ধ বন্ধের শপথ

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

টেঁটাযুদ্ধ বন্ধের শপথ

নরসিংদী প্রতিনিধি ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৯, ২০১৯

print
টেঁটাযুদ্ধ বন্ধের শপথ

নারায়ণগঞ্জের সীমান্তবর্তী অঞ্চল ও নরসিংদীতে ‘টেঁটাযুদ্ধ’ একটি নিয়মিত ঘটনা। আধিপত্য বিস্তারসহ নানা কারণে এসময় এলাকায় নিয়মিত পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলোর বাসিন্দাদের মধ্যে টেঁটাযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এসব সংঘর্ষে লুটপাটসহ বহু প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। অনেকে বছরের পর বছর এলাকায় ঢুকতে পারেন না।

এবার তুচ্ছ কারণে প্রাণঘাতী টেঁটাযুদ্ধের অবসানের শপথ নিয়েছে নরসিংদীর আলোকবালি গ্রামের বাসিন্দারা। এ উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করে তারা।

‘দল যার যার সমাজ সবার। আসুন আমরা সবাই মিলেমিশে গ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যাই’- এই স্লোগান সামনে রেখে হামলা, মামলা, সংঘর্ষ ও টেঁটাযুদ্ধ বন্ধের শপথ নিয়েছেন আলোকবালি গ্রামবাসী। গতকাল রোববার তারা নিজেদের মধ্যে হানাহানি ভুলে ঐক্যবদ্ধ থাকা ও শান্তিতে বসবাসের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। একই সঙ্গে তারা দল মত ভুলে একে অপরকে আলিঙ্গন করেছেন।

পবিত্র ঈদুল আজহার উপলক্ষে আলোকবালি গ্রামে গতকাল ঈদ পুনর্মিলনী আয়োজন করেন গ্রামবাসী। ওই অনুষ্ঠানে এমনই অভিমত ব্যক্ত করেন তারা। একই সঙ্গে গ্রামের বাইরে থাকা লোকজনকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এ উপলক্ষে পুরো গ্রামে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

সদর উপজেলার মেঘনা নদীর চরাঞ্চল আলোকবালীতে দুটি পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন দ্বন্দ্ব চলছিল। এর জেরে একাধিকবার হামলা, ভাঙচুর ও খুনোখুনির ঘটনা ঘটে। ফলে প্রায়ই কোনো না কোনো পক্ষকে গ্রামের বাইরে থাকতে হয়। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে গ্রামের মুরুব্বি ও নেতৃস্থানীয় লোকজন এ সংকট নিরসনের উদ্যোগ নেন।

এরই ধারাবাহিকতায় আব্দুল কাইয়ুম সরকারসহ গ্রামের লোকজনকে বরণ করে নেওয়া হয়। এর ফলে দীর্ঘ সাত বছর পর কাইয়ুম সরকারসহ বেশ কয়েকজন নিজ গ্রামে ফিরে এসেছেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, আমরা আর ঝগড়া-ফাসাদ দেখতে চাই না। দল যার যার, সমাজ সবার। সবাই মিলেমিশে গ্রামকে এগিয়ে নিতে হবে। তাই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে থাকতে হবে।

অনুষ্ঠানে আলোকবালি ইউনিয়ন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক রিপন খান, যুবলীগ নেতা সুমন মিয়া, আবুল খায়ের, নজরুল ইসলাম, এসএম আমিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।