সেতুর অভাবে দুর্ভোগ

ঢাকা, সোমবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সেতুর অভাবে দুর্ভোগ

মনোহরদী (নরসিংদী) প্রতিনিধি ৭:৩১ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৯, ২০১৯

print
সেতুর অভাবে দুর্ভোগ

নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলা আর গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলাকে ভেদ করে বয়ে গেছে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ। নদের পূর্ব পাশ্বের মনোহরদী উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়ন আর পশ্চিম পাশ্বের কাপাসিয়ার সনমানিয়া ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ এ নদ পারাপারের সময় দীর্ঘদিন ধরে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। এ নদ পার হতে প্রত্যেকদিন গড়ে দুই সহস্রাধীক সাধারণ মানুষ আর শতাধিক শিক্ষার্থীর এক মাত্র অবলম্বন হলো বর্ষাকালে একটি খেয়া নৌকা আর শুকনো মৌসুমে বাঁশের সাঁকো। এ দুর্ভোগ থেকে মুক্তির জন্য অবিলম্বে একটি সেতু নির্মাণ দুই ইউনিয়নবাসীর প্রাণের দাবি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, প্রত্যেক দিন দৌলতপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর, কুচেরচর, কীর্তিবাসদি, নিশ্চিন্তপুর, কেরানীনগর এবং সনমানীয়া ইউনিয়নের দক্ষিণগাও, মির্জানগর, সনমানিয়া, আড়ালসহ নানা এলাকার প্রয় পাঁচ হাজার সাধারণ মানুষ এ নদ পার হয়ে থাকে। এছাড়া প্রায় শতাধিত শিক্ষার্থী মির্জানগর হয়ে এ নদ পাড়ি দিয়ে দৌলতপুর হয়ে দৌলতপুর ইউ: উচ্চ বিদ্যালয়, লাখপুর শিমুলিয়া কলেজ, হাতিরদিয়া রাজি উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ, হরিনারায়রপুর মাদ্রাসা এবং দৌলতপুর হতে নদ পাড়ি দিয়ে মির্জানগর হয়ে আড়াল জিএল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বর্ণমালা স্কুল অ্যান্ড কলেজের শ্রেণি কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে থাকে।

অন্যদিকে, কাপাসিয়ার আড়ালে অবস্থিত এনপিএম এ্যাপারেলস কম্পানির শ্রমিকরা বিভিন্ন শিফটে ডিওটি করতে গিয়ে পড়তে হয় বিভিন্ন সমস্যায়। অনেক সময় বর্ষাকালে নৌকার বিড়ম্বনায় পড়ে সময় মত কাদের কাজে যোগ দিতে পারে না। এবং রাতের শিফটে কাজ করার সময় নদ পাড় হতে সমস্যায় পড়তে হয়।

সনমানিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল মালেক ভূইয়া জানান, মির্জানগর চরে উৎপাদিত শাক সবজি নদের ওই পাড়ে অবস্থিত দৌলতপুর রদখোলা বাজার, লাখপুর শিমুলিয়া বাজার, কোচেরচর নতুন বাজার এবং হাতিরদিয়া বাজারে বিক্রী করতে হয়। ফলে কৃষকদের উৎপাদিত এ সবজি বাজারে বহন করে নিয়ে যাওয়ার সময় সাঁকো পার হতে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। এ জন্য কৃষকদের পরিবহন খরচ হয় বেশি।

দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান হাদিউল ইসলাম জানান, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের উপর সেতু নির্মাণ দৌলতপুর এবং সনমানিয়া ইউনিয়নবাসীর প্রাণের দাবি। যথাযথ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আমলে নিলে সাধারণ জনগণের দুর্ভোগ অনেকটা লাঘব হবে।

দৌলতপুর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আ: রশিদ জানান, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের উপর সেতু নির্মাণ অতি জরুরী। এ নদের উপর সেতু নির্মাণ হলে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের কষ্টের অবসান হবে।