টাকা না পেয়ে ভাঙচুর

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

কালিয়াকৈর বনবিভাগ

টাকা না পেয়ে ভাঙচুর

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি ৯:২০ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৮, ২০১৯

print
টাকা না পেয়ে ভাঙচুর

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে চাহিদা অনুযায়ী টাকা না পেয়ে গতকাল সোমবার সকালে পুরোনো ঘর ও দোকান ভাংচুর করেছে বনবিভাগের লোকজন। এসময় এক নারীকে লাঞ্চিত করে তার দোকান থেকে টাকাসহ ক্যাশবাক্স লুট করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর রেঞ্জ অফিসের আওতায় চন্দ্রা বিট অফিসের গোয়ালবাথান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ওই এলাকার শাহাজুদ্দিনের ছেলে শহিদুল ইসলাম (সবদুল) দীর্ঘদিন বনবিভাগের ৫ শতাংশ জমিতে বসবাস করে আসছে। তার থাকার ঘরের এক পাশে একটি দোকান রয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিনের পুরোনো ওই ঘরের টিন নষ্ট হয়ে ঘরে বৃষ্টির পানি ঢুকে পড়ে। এ কারণে সম্প্রতি ওই ঘরের টিন পরিবর্তন করে সবদুল মিয়া।

খবর পেয়ে গত ১০-১২ দিন আগে চন্দ্রা বিট অফিসের ৫ থেকে ৬ জন লোক সেখানে যায়। পরে তারা সবদুলের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। এ সময় সবদুল তাদের ৭ হাজার টাকা দেয় এবং বাকী টাকা পরে দিবে বলে জানালে তারা চলে যায়। কিন্তু সোমবার সকালে ওই চন্দ্রা বিট অফিসের কর্মকর্তা মঞ্জুরুল করিম তার লোকজন নিয়ে সবদুলের ঘরে যান। পরে ওই পুরোনো ঘর ও দোকান ভাংচুর করে।

এ সময় সবদুলের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম নিষেধ করতে গেলে তাকে গাড় ধরে ঘর থেকে বের করে দেয় বনবিভাগের লোকজন। এছাড়া তারা টাকাসহ দোকানের ক্যাশ বাক্স লুট করে নিয়েছে বলেও ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। পরে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার ও বিক্ষুব্দ লোকজন কালিয়াকৈর পৌরসভার মেয়র মজিবুর রহমানের কাছে মৌখিক অভিযোগ করেন।

ক্ষতিগ্রস্থ সবদুল মিয়া বলেন, ঘরের টিন নষ্ট হলে তা পরিবর্তন করেছি। খবর পেয়ে বনবিভাগের লোকজন এসে ৫০ হাজার টাকা দাবি করলে তাদের ৭ হাজার টাকা দেওয়া হয়। বাকী টাকা না পেয়ে বনবিভাগের লোকজন এসে ঘর ও দোকান ভাংচুর করে। এক পর্যায় আমার স্ত্রী মনোয়ারাকে লাঞ্চিত করে।

এছাড়া ব্যাংক থেকে এক লাখ টাকা তোলে ৪২ হাজার টাকার টিন কিনেছি। বাকী টাকা দোকানের ক্যাশ বাক্সে ছিল। ঘর ও দোকান ভাংচুরের সময় ওই টাকাসহ ক্যাশ বাক্স লুট করে নিয়ে গেছে।

চন্দ্রা বিট অফিসের বিট কর্মকর্তা মঞ্জুরুল করিম জানান, বনের জমিতে নতুন ঘর উঠালে আমরা ভেঙ্গে দিয়েছি। তবে টাকা চাওয়া, নারীকে লাঞ্চিত ও ক্যাশ বাক্স লুট করা বিষয়গুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ।