ফেনীতে প্রতিবাদ মিছিলে ত্রিমূখী ইটপাটকেল নিক্ষেপ, ওসিসহ আহত ৩০

ঢাকা, সোমবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২১ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

ফেনীতে প্রতিবাদ মিছিলে ত্রিমূখী ইটপাটকেল নিক্ষেপ, ওসিসহ আহত ৩০

ফেনী প্রতিনিধি
🕐 ১০:১৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২১

ফেনীতে প্রতিবাদ মিছিলে ত্রিমূখী ইটপাটকেল নিক্ষেপ, ওসিসহ আহত ৩০

ফেনীতে পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিবাদ মিছিলকে কেন্দ্র আ.লীগ, পুলিশসহ ত্রিমূখী ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় থানার ওসি সহ ১৫ জন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশকে শর্টগানের ও রাবার বুলেটসহ বেশ কিছু ফাকাগুলি ছুড়তে হয়েছে। বিকেল ৫টার পর থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বিক্ষিপ্ত ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা চলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্র জানায়, শনিবার বিকালে শহরের ট্রাংক রোডে পূজা উদযাপন পরিষদের প্রতিবাদ মিছিল হওয়ার কথা ছিল। আসরের নামাজের পরপর ট্রাংক রোডের কালি মন্দির থেকে মিছিলের প্রস্ততি নেওয়া হয়। এসময় পাশেই ট্রাংক রোডের বড় মসজিদের মুসল্লীরা নামাজ শেষ করে মসজিদ থেকে মুসল্লীরাও চলে যাচ্ছিলেন। কিছু যুবক তখন মসজিদের সামনে দাঁড়ানো ছিল।

ফেনী থানার ওসির নেতৃত্বে পুলিশ দুই পক্ষের মাঝামাঝি অবস্থান নেয়। উভয় পক্ষকে বিরত রাখার চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। কয়েক মিনিটের মধ্যে পূজা উদযাপন পরিষদের লোকজন মন্দিরের ভেতর চলে যায়। পরে তারা ধীরে ধীরে নিজ নিজ গন্তব্যে চলে যায়। এর একটু পর সোনাগাজীর দিক থেকে আওয়ামী লীগ-যুবলীগের একটি মিছিল ওই স্থান দিয়ে যাওয়ার সময় মসজিদের সামনের ওই লোকদের সাথে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও পাল্টাপাল্টি ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে।

এসময় যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন ডালিম, ফজলুল হক (হকসাব), ইটের আঘাতে আহত হয়। এ সময় দফায় দফায় ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার জন্য বেশ কয়েক রাউন্ড শর্টগানের ফাকা গুলি ছেড়ে। এ সময় ইটের আঘাতে ফেনী মডেল থানার ওসি মো. নিজাম উদ্দিন সহ আরও কয়েকজন জন আহত হয়। তাদের মধ্যে একটি বেসরকারী টেলিভিশনের ক্যামেরাম্যান রিয়াদ মোল্লা, তপু, জাবেদ, রাব্বি, জামাল, হৃদয় এবং পুলিশসহ ২৫-৩০ জন আহত হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশকে বেশ কিছু গুলি ছোঁড়তে হয়েছে মাগরিবের নামাজ শেষে আবারও কিছু লোক ফেনী বড় মসজিদের সামনে অবস্থান নেয়। এসময় বিক্ষোভকারী, পুলিশ ও আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের আবার ইটপাটকেল বিনিময় চলে। পরে মসজিদের সামনে অবস্থান করা লোকজন মসজিদের ছাদে, ৩য় তলা ও ৪র্থ তলায় উঠে অবস্থান নিয়ে আবারও ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশকে কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছোঁড়তে হয়।

রাত ৮টার দিকে পুলিশ মসজিদের ছাদ ও তৃতীয়-চতুর্থ তলা থেকে ওই সব লোকদের সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। বিকেল থেকে ফেনীর পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারগনসহ পুলিশ কর্মকর্তাগণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ঘটনাস্থলে থাকতে দেখা গেছে।

জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও ফেনী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শুসেন চন্দ্র শীল জানায়, কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর কারনে তারা প্রতিবাদ মিছিল করতে চেয়েছিল। পরিস্থিতির কারনে কর্মসূচী বাতিল করা হয়েছে। তারপরও কিছু লোক বিশৃংখলা সৃষ্টির চেষ্টা করেছে।

পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী জানান, ইটপাটকেলের আঘাতে ফেনী মডেল থানার ওসিসহ অন্তত ১৫-১৬ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তিনি জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে বেশ কিছু ফাকা গুলি ছুড়তে হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত হলেও এখনো শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছেন।

 
Electronic Paper