আ. লীগের মনোনয়ন পেতে তৎপর নেতারা, নিরব বিএনপি

ঢাকা, রবিবার, ৭ মার্চ ২০২১ | ২২ ফাল্গুন ১৪২৭

বারইয়ারহাট পৌরসভা নির্বাচন

আ. লীগের মনোনয়ন পেতে তৎপর নেতারা, নিরব বিএনপি

মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি ৯:১৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২১

print
আ. লীগের মনোনয়ন পেতে তৎপর নেতারা, নিরব বিএনপি

পঞ্চম ধাপে ২৮ ফেব্রুয়ারি মিরসরাইয়ের বারইয়ারহাট পৌরসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণে ইচ্ছুক আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা মাঠে তৎপর হয়ে উঠেছেন। নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড় ঝাঁপ শুরু করেছেন ক্ষমতাসীন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। এদিকে নীরবে প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিএনপি নেতারা।

আ.লীগ থেকে যাদের নাম শোনা তারা হলেন- বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. নিজাম উদ্দিন (ভিপি নিজাম), বারইয়ারহাট পৌর আ.লীগের বর্তমান সভাপতি মীর আলম মাসকু, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম খোকন, উপজেলা আ.লীগের সদস্য আলী আহছান ও বারইয়ারহাট পৌর আ.লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ফজলুল করিম লিটন। সম্ভাব্য প্রার্থীরা তাকিয়ে আছে দলীয় সিদ্ধান্তের দিকে। দলীয় প্রার্থী নির্ধারণে বাংলাদেশ আ.লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী, মিরসরাইয়ের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সিদ্ধান্ত অনেকটা চূড়ান্ত বলে জানা গেছে। তাই দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তির জন্য সব প্রার্থী তার সুদৃষ্টির প্রত্যাশায় প্রহর গুণছেন। 

বর্তমান মেয়র নিজাম উদ্দিন বলেন, বিগত ৫ বছরে প্রায় ৪৩ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে। আরও অনেকগুলো উন্নয়ন কাজের জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে। আমাদের প্রিয় নেতার নামে পৌর সদরে ‘মোশাররফ চত্বর’ করা হচ্ছে। আমি মনে করি আমাদের প্রিয় নেতা সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন উন্নয়ন কাজের যথাযথ মূল্যায়ন করবেন। পৌরসভার অসমাপ্ত কাজ শেষ করার জন্য আমি পুনরায় দলীয় মনোনয়ন চাইব।

বারইয়ারহাট পৌর আ.লীগের সভাপতি মীর আলম মাসুক বলেন, আমি ১৯৬৯ সাল থেকে আ.লীগ নেতা মহিউদ্দিন রাশেদসহ দলের হয়ে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নিয়েছি। দলের নেতাকর্মীদের সুখে দুঃখে পাশে রয়েছি। সকল আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে ছিলাম। আমি দলীয় মনোনয়ন পেলে বারইয়ারহাট পৌরসভাকে মডেল পৌরসভায় পরিণত করব।

বারইয়ারহাট পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম খোকন বলেন, আমি সব সময় দলীয় কর্মকা-ে সরব রয়েছি। ২০১৩-২০১৪ সালের বিএনপি-জামায়াতে জ¦ালাও পোড়াও আন্দোলন প্রতিহত করতে রাজপথে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছি। আশা করছি দল যদি ত্যাগীদের চায় সেক্ষেত্রে আমি দলীয় মনোনয়ন পাব।

উপজেলা আ.লীগের সদস্য ও চট্টগ্রাম পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর পরিচালক আলী আহছান বলেন, বারইয়ারহাট পৌর আ.লীগের বিগত কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রার্থী ছিলাম। কিন্তু আমাদের প্রিয় নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে সরে গেছি। তাই আগামী পৌর নির্বাচনে আমি দলীয় মনোনয়ন চাইব। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আমি আত্মবিশ্বাসী।

এদিকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ দলীয় সিদ্ধান্তের বিষয় হলেও নীরবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন বারইয়ারহাট পৌর বিএনপির বর্তমান আহবায়ক দিদারুল আলম মিয়াজি এবং সাবেক সভাপতি মাঈন উদ্দিন লিটন।

দিদারুল আলম মিয়াজি বলেন, নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে ইতোমধ্যে দলীয় হাইকমান্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। দলের তৃণমূলের নেতাকর্মী ও পৌর এলাকার জনসাধারণের সুখে দুঃখে অংশীদার হওয়ার চেষ্টা করছি। দল যদি ধানের শীষ প্রতীকে মনোনয়ন দেয় নির্বাচনে অংশ নেব।

বারইয়ারহাট পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি মাঈন উদ্দিন লিটন জানান, সাম্প্রতিক সময়ে তিনি দলের সকল কর্মসূচি পালন করছেন। দলীয় নেতাকর্মীদের সুখে দুঃখে পাশে দাঁড়িয়েছেন। আগামী নির্বাচনে দল মনোনয়ন দিলে তিনি নির্বাচনে অংশ নেবেন। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেন পৌরসভার দুইবারের সাবেক কাউন্সিলর জামায়াত নেতা নুরুল হুদা হামিদী।