খেলার মাঠে তামাক খেত!

ঢাকা, বুধবার, ২ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

খেলার মাঠে তামাক খেত!

মো. নেজাম উদ্দিন, কক্সবাজার  ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০

print
খেলার মাঠে তামাক খেত!

কচ্ছপিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ মেতে ওঠে শিশু-কিশোরদের খেলায়। এখন সেখানে নাকি হবে তামাক চাষ। এজন্য মাঠ দেওয়া হয়েছে বর্গা। কক্সবাজারের রামু উপজেলার কচ্ছপিয়া ইউনিয়নে এমন ঘটনায় ক্ষোভ জানিয়েছেন শিক্ষার্থী-জনতা। গত সোমবার ঘণ্টাব্যাপী করেছে বিক্ষোভ-সমাবেশে। সমাবেশ থেকে এসব অপকর্মে জড়িতদের শাস্তির পাশাপাশি স্কুলের খেলার মাঠ শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত রাখার দাবি জানানো হয়।

দশম শ্রেণির এক ছাত্র অভিযোগ করে, তাদের প্রধান শিক্ষক নুরুল আবছার টাকার লোভে স্কুলের খেলার মাঠ তামাক চাষের জন্য বর্গা বা লাগিয়ত করেছেন। আরও কিছু শিক্ষার্থী একই কথা বলেন।

কচ্ছপিয়া শ্রমিক লীগ সভাপতি আবু তালেব সিকদার জানান, ১৯৯০ সালে নবী হোসন গং স্থানটিকে খেলার মাঠ করতে স্কুলের নামে দান করেছেন বলে এলাকাবাসী দাবি জানায়। স্কুলের শিক্ষার্থী ও স্থানীয় ক্রীড়ামোদীদের দাবির প্রেক্ষিতে কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ সাইমুম সরওয়ার কমল ওই জায়গাতে খেলার মাঠ করার ঘোষণা দেন। ফুটবল খেলার মাঠ করতে তিনি প্রয়োজনীয় সাহায্য সহযোগিতা করবেন বলেও জানান। এমন সময় ওই জমিতে তামাক চাষ হওয়া উচিৎ নয় বলে মনে করি।

এই ব্যাপারে স্কুলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম সিকদারের সঙ্গে কথা বলা হলে তিনি জানান, স্কুলের খেলার মাঠটি প্রধান শিক্ষক এককভাবে লাগিয়ত করেছেন। যা চরম অন্যায় ও নিয়ম বহির্ভূত। তাছাড়া খেলার মাঠ করতে রয়েছে এমপি সাইমুম সরওয়ার কমলের পরামর্শও।এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তবে অভিযোগ ঘুরিয়ে উপস্থাপন করেছেন প্রধান শিক্ষক নুরুল আবছার। তিনি বলেন, ‘এটি খেলার মাঠ নয়, স্কুলের জমি। যা অতীতে যেভাবে লাগিয়ত হয়ে আসছে একই ভাবে এ বছরও লাগিয়ত (বর্গা) করেছেন।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্রণয় চাকমা বলেন, ‘খোঁজ-খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’