নাজিরসহ চারজনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

ঢাকা, রবিবার, ১ নভেম্বর ২০২০ | ১৬ কার্তিক ১৪২৭

নাজিরসহ চারজনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

নোয়াখালী প্রতিনিধি ১২:৫৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০

print
নাজিরসহ চারজনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

অবৈধ ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে নোয়াখালী জেলা জজ আদালতের নাজির মোহাম্মদ আলমগীর ও তার স্ত্রীসহ চার জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেছে দুদক। এ ঘটনায় আদালত পাড়ায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর এ মামলার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকালে দূর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় নোয়াখালীর উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম নোয়াখালী জেলা ও দায়রা জজ সালাহ উদ্দিন আহাম্মেদের আদালতে এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

অন্য আসামীরা হলেন- আলমগীরের স্ত্রী নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের জুডিসিয়াল পেশকার নাজমুন নাহার, আলমগীরে বোন আফরোজা আক্তার ও তার বন্ধু বিজন ভৌমিক।

দুদক নোয়াখালী কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ফেনী জেলার দাগনভূঁইয়া উপজেলার দক্ষিণ লালপুর গ্রামের মো. নুরুল ইসলামের ছেলে ও নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সাবেক রেকর্ড কিপার-বর্তমানে জেলা জজ আদালতের নাজির মোহাম্মদ আলমগীর ১৯৯৭ সালের ১ জানুয়ারি নোয়াখালী জেলা জজ আদালতে স্টেনোগ্রাফার পদে যোগদান করেন। পরবর্তীতে পদোন্নতি পেয়ে তিনি রেকর্ড কিপার ও নাজির হন।

২০০৬ সালে তিনি নাজমুন নাহার কে বিয়ে করেন। এরপর ২০০৮ সালে স্ত্রী নাজমুন নাহারকে জুডিসিয়াল পেশকার পদে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চাকরি দেন। তারপর স্বামী-স্ত্রী দুজনে মিলে অবৈধ উপায়ে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করতে থাকেন। এঘটনায় অভিযোগ পেয়ে অবৈধ সম্পদদের অনুসন্ধানে নামে দুদক।

আরও জানা গেছে, অনুসন্ধানে নোয়াখালী পৌরসভা এলাকা, ফেনী ও ঢাকা জেলায় আলমগীর-নাজমুন নাহার দম্পতির নামে ৭ কোটি টাকারও বেশি অবৈধ সম্পদের সন্ধান পাওয়া যায়। এছাড়াও ভূয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যাংকে হিসাব খুলে প্রায় ৩৭ কোটি টাকা অবৈধ লেনদেন করেন। অবৈধ সম্পদ অর্জন প্রতারনা ও জালিয়াতির অপরাধে তার বিরুদ্ধে ৩টি মামলা দায়ের হয়।

গত ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট দুদক নোয়াখালী কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক সুবেল আহম্মেদ মাইজদী শহরের কৃষ্ণরামপুর পল্লবী সরকারি আবাসিক এলাকা থেকে আলমগীরকে গ্রেপ্তার করে। আলমগীর দুদকের এ গ্রেপ্তারের প্রতি চ্যালেঞ্জ করে দূর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম ও সহাকারি পরিচালক সুবেল আহম্মদকে উকিল নোটিশ পাঠায়।

এ বিষয়ে আলমগীর জানান, চার্জশিট দাখিলের বিষয়টি তিনি শুনেছেন।

দুদক নোয়াখালী উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গত বছর আগস্ট মাসে মোহাম্মদ আলমগীর ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেন তিনি। দীর্ঘ ১ বছর তদন্ত শেষে তার ও তার স্ত্রীর নামে বেনামে ৭ কোটি ১৭ লাখ ৩৫ হাজার ৬২৫ টাকার অবৈধ সম্পদ, প্রতারণা মূলকভাবে মানি লন্ড্রারিং কার্যক্রমে সম্পৃক্ত থাকা, ঘুষ ও দূর্নীতির মাধ্যমে অর্থ আয় এবং ব্যাংক হিসেবে ৩৭কোটি টাকার অবৈধ লেনেদেনের প্রমাণ মিলেছে।