গৃহবধূকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ, ইউপি সদস্যসহ আটক ৫

ঢাকা, বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০ | ৫ কার্তিক ১৪২৭

গৃহবধূকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ, ইউপি সদস্যসহ আটক ৫

নোয়াখালী প্রতিনিধি ৯:৩৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০২০

print
গৃহবধূকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ, ইউপি সদস্যসহ আটক ৫

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় এক গৃহবধূকে ধর্ষণ ও সালিশে নির্যাতনের অভিযোগে ইউপি সদস্যসহ ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটকরা হলেন, উপজেলার বীজবাগ ইউনিয়নের ইউপি সদস্য আবু বক্কর ছিদ্দিক এবং মাসুদ, ইয়াছিন, আব্দুল হক মাস্টার, ওবায়দুল হক।

 

 

শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে আটককৃত আসামিদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়। এর আগে, এ ধর্ষণের ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে ১১ জনকে আসামি করে নির্যাতিতা গৃহবধূ (৩২) বাদী হয়ে সেনবাগ থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ ৫ জনকে আটক করে।

সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল বাতেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গত ৭-৮ দিন পূর্বে ওই গৃহবধূ পারিবারিক কলহের জের ধরে কোম্পানীগঞ্জস্থ তার বাবার বাড়ি চলে যায়। পরে ৫ সেপ্টেম্বর তার স্বামীর বন্ধু দিদারকে বিষয়টি জানাতে ফেনীতে যান ওই গৃহবধূ। এক পর্যায়ে দিদার রাতে সেনবাগ তার স্বামীর বাড়িতে তাকে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে ফেনী থেকে সেনবাগ নিয়ে আসে তাকে। কিন্তু তাকে তার স্বামীর বাড়িতে পৌঁছে না দিয়ে দিদার একটি নির্জনস্থানে নিয়ে যায়। পরে সেখানে আরও তিনজন তাকে ধর্ষণ করে।

ওসি আব্দুল বাতেন মৃধা আরও জানান, ভুক্তভোগী গৃহবধূ বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ছিদ্দিককে জানালে ইউপি সদস্যসহ সালিশ করে উল্টো ওই নারীকে খারাপ আখ্যা দিয়ে মারধর করে পুনরায় বাপের বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এক পর্যায়ে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে গৃহবধূ বিষয়টি সেনবাগ থানায় জানালে পুলিশ রাতেই ইউপি সদস্যসহ ধর্ষণের সঙ্গে জড়িতদের আটক করে। দিদারসহ অভিযুক্তদের অন্য আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশ জোর তৎপরতা চালাচ্ছে।