করোনা রিপোর্ট ঘিরে বিভ্রান্তি

ঢাকা, শুক্রবার, ৭ আগস্ট ২০২০ | ২২ শ্রাবণ ১৪২৭

করোনা রিপোর্ট ঘিরে বিভ্রান্তি

চট্টগ্রাম ব্যুরো ১০:১১ অপরাহ্ণ, জুন ৩০, ২০২০

print
করোনা রিপোর্ট ঘিরে বিভ্রান্তি

এবার করোনাভাইরাসের পজিটিভ রিপোর্ট পেয়ে ভুল তথ্যে বিভ্রান্ত হয়েছেন চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউটিনের সমন্বয়ক ডা. আব্দুর রব মাসুম। একদিনে এক নামে দুই ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষা করায় ভুল তথ্যের জটিলতা সৃষ্টি হয়। সর্বশেষ সোমবার রাতে নমুনা দ্বিতীয়বার নমুনা পরীক্ষায় তার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে বলে জানিয়েছেন ডা. আব্দুর রব মাসুম। এর আগে গত শুক্রবার নমুনা দেওয়ার পরদিন শনিবার রাতে নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ডা. আব্দুর রবের রিপোর্ট পজিটিভ আসে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. জামাল মোস্তফা।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাব থেকে সেই রিপোর্ট মৌখিকভাবে ডা. রবকে জানানো হয়েছিল। নমুনা ফলাফলে সন্দেহ থাকায় তিনি পুনরায় পরীক্ষা করেন এবং রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

এ বিষয়ে ডা. আব্দুর রব বলেন, স্ত্রীর করোনা পজিটিভ আসার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি নিজেই গত শুক্রবার করোনা পরীক্ষা করান। এর একদিন পর শনিবার আনঅফিসিয়ালি মৌখিকভাবে রিপোর্টটি সংগ্রহ করেন। রিপোর্টে পজিটিভ আসায় উনার মধ্যে সংশয় কাজ করে। তাই পরদিন রোববার ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি ল্যাবে আবার নমুনা পরীক্ষা করায়। গত সোমবার রাতে সেই রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। চমেক ল্যাবের পজিটিভ রিপোর্ট সম্পর্কে তিনি বলেন, রিপোর্টটি আমি আনঅফিসিয়ালি সংগ্রহ করি। তাও মৌখিকভাবে। ওখানে এক দিনে একই নামে দুই ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাই তাড়াহুড়া করে বলতে গিয়ে ভুল করেছে। তিনি বলেন, করোনায় আক্রান্ত স্ত্রী আগের চেয়ে ভালো আছেন।

এ বিষয়ে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ডা. আব্দুর রবের পজিটিভ রিপোর্ট ডকুমেন্টেট কিছু না। একই দিন এক নামে দুজন ব্যক্তি পরীক্ষা করায় তথ্যগত ভুলে ডা. রবকে জানানো হয়েছিল রিপোর্ট পজিটিভ। অফিসিয়ালি জানানো হয়নি। পরদিন সকালে যাচাই-বাছাই করে চমেক ল্যাব থেকে আবার জানানো হয় ডা. রবের করোনা পজিটিভ ছিল না, রিপোর্ট নেগেটিভ। সন্দেহ দূর করতে তিনি পরদিন বিআইটিআইডিতে নমুনা পরীক্ষা করান। সেখানেও রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

চবিকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও অক্সিমিটার প্রদান : করোনাভাইরাসের দুর্যোগে চবি পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের লক্ষ্যে এমবিএ অ্যাসোসিয়েশন, চবি’র পক্ষ থেকে চবি শিক্ষক সমিতিকে পাঁচটি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১২টি অক্সিমিটার প্রদান করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতারের কাছে চবি উপাচার্য দফতরের সভাকক্ষে একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এসব সামগ্রী।

প্রদান করা হয়। এ সময় চবি শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি প্রফেসর ড. মো. তৌহিদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মনজুরুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক মো. সাইফুদ্দীন, কোষাধ্যক্ষ শাহনেওয়াজ মাহমুদ সোহেল ও সদস্য ড. কাজী তানভীর আহমেদ রনি উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, এমবিএ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও আবুল খায়ের গ্রুপের ডিএমডি আবু সাঈদ চৌধুরীর সার্বিক তত্ত্বাবধানের এ চিকিৎসাসামগ্রী প্রদান করা হয়।  চবি উপাচার্য বলেন, করোনা দুর্যোগের এ মহামারিতে সামর্থ্যবান ব্যক্তিরা অসহায় ও দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ালে আক্রান্ত বহু মানুষের জীবন বাঁচানো সম্ভব হবে। উপাচার্য এ মহাদুর্যোগে দেশের বিত্তবান ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানকে যার যার অবস্থান থেকে সাধ্যমত সাহায্য-সহযোগিতার হাত সম্প্রসারণের আহ্বান জানান।