ঢাকা থেকে কুমিল্লায় মাত্র দেড় ঘণ্টায়

ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬

ঢাকা থেকে কুমিল্লায় মাত্র দেড় ঘণ্টায়

কুমিল্লা প্রতিনিধি ১০:১৮ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১১, ২০১৯

print
ঢাকা থেকে কুমিল্লায় মাত্র দেড় ঘণ্টায়

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মেঘনা ও গোমতী নদীর ওপর নির্মিত দ্বিতীয় মেঘনা, দ্বিতীয় গোমতী সেতু ও দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু খুলে দেওয়ায় এর সুফল পাচ্ছেন এবারের ঈদে বাড়ি ফেরা যাত্রীরা। গত ঈদুল ফিতরের মতো এবারের ঈদুল আজহায় যাত্রীরা যানজটের ভোগান্তি ছাড়াই স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছেন। মাত্র দেড় থেকে দুই ঘণ্টায় ঢাকা থেকে কুমিল্লায় যাচ্ছেন যাত্রীরা। ২০১৮ সালের ঈদুল আজহার সময় যারা যানজটের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা মহাসড়কের কাঁচপুর থেকে দাউদকান্দি পর্যন্ত যানজটে আটকে ছিলেন এবার তারা দুই ঘণ্টায় ঢাকা থেকে কুমিল্লায় যাচ্ছেন। যাত্রীদের সেই ভোগান্তির চিত্র এখন আর নেই। যানজটের সেই চির চেনা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের এখন ভিন্ন চিত্র।

ঢাকা থেকে কুমিল্লার দূরত্ব ৯৭ কিলোমিটার। এই পথ পাড়ি দিতে সর্বোচ্চ দুই ঘণ্টা লাগার কথা। দেড় ঘণ্টায়ও যাওয়া যায়। অথচ এই পথ পাড়ি দিতে আগে কখনো কখনো ৮ থেকে ১০ ঘণ্টাও লাগত। সেতুর কাছে গাড়ির লম্বা লাইন না থাকলে সাধারণত তিন থেকে চার ঘণ্টায় পৌঁছাতেন যাত্রীরা। যানজট এড়িয়ে দ্রুত পৌঁছানোর জন্য ভোরে রওনা দিতেন অনেকেই। তবে সব সময় সেই চেষ্টাও কাজে আসত না।

গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুরু হয় ঈদের ছুটি। বাড়ি ফেরা মানুষ যাত্রীবাহী ও প্রাইভেট যানবাহনে স্রোতে মতো বাড়ি ফিরলেও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কোনো যানজট ছিল না। শনিবারও মহাসড়কের একই চিত্র ছিল। পুরো সড়ক ফাঁকা।

হাইওয়ে পুলিশ জানায়, শনিবার ভোর থেকে মহাসড়কে যানবাহনের চাপ থাকলেও যানজট না থাকায় নির্দিষ্ট সময়ে গন্তব্যে পৌঁছতে পেরে স্বস্তি প্রকাশ করছেন যাত্রীরা। ২০১৮ সালের কোরবানির ঈদের দুইদিন আগে তীব্র যানজটের কারণে ঢাকা থেকে কুমিল্লায় আসতে সময় লেগেছিল ৫-৬ ঘণ্টা। এবার লাগছে মাত্র দেড় থেকে দুই ঘণ্টা।

কুমিল্লা-ঢাকা সড়কে চলাচলকারী হানিফ পরিবহনের চালক রিপন মিয়া জানান, গত কোরবানির ঈদে ঢাকা থেকে কুমিল্লায় আসতে সময় লেগেছিল প্রায় ছয় ঘণ্টা। কিন্তু নতুন তিনটি সেতু চালু হওয়ায় আগের মতো ভোগান্তি নেই। দেড় দুই ঘণ্টার মধ্যে ঢাকা থেকে কুমিল্লায় পৌঁছতে পারছি আমরা।

কুমিল্লা বাস মালিক পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নতুন তিনটি সেতু চারলেন বিশিষ্ট হওয়ায় নির্ধারিত সময়েই আমাদের বাস সার্ভিস যাত্রীদের গন্তব্যে পৌছে দিতে পারছে। মহাসড়কে কোথাও কোনো যানজট নেই। তিনটি সেতু চালু থাকার সুফল পাচ্ছে যাত্রী, চালক ও মালিক পক্ষ।

এছাড়াও কয়েকজন বাসচালক ও যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এখন ঢাকা থেকে দাউদকান্দি মেঘনা-গোমতী সেতু পর্যন্ত যেতে সময় লাগে মাত্র ৪৫ মিনিট। বাকি ৪৫ মিনিটে কুমিল্লায় পৌঁছানো যায়। আবার কুমিল্লা থেকেও একইরকমভাবে দাউদকান্দি মেঘনা-গোমতী সেতু পর্যন্ত আসতে সময় লাগে মাত্র ৪৫ মিনিট। বাকি ৪৫ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছানো যায়।

কুমিল্লা হাইওয়ে অঞ্চলের পুলিশ সুপার নজরুল ইসলাম বলেন, কোথাও যানজট না থাকলেও আমরা কেউ বসে নেই। মহাসড়কের যানজটপ্রবণ এলাকাসহ সব স্থানে পুলিশের টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে। রাতে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্ন রাখতে মহাসড়কে হাইওয়ে ও থানা পুলিশসহ স্থানীয় প্রশাসন বেশ তৎপর রয়েছে।