ছয় দিনে আক্রান্ত ৮৫

ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬

সোনাগাজীতে ডায়রিয়া-নিউমোনিয়ার প্রকোপ

ছয় দিনে আক্রান্ত ৮৫

ফেনী প্রতিনিধি ২:২৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০১৯

print
ছয় দিনে আক্রান্ত ৮৫

ফেনীর সোনাগাজীতে প্রচণ্ড তাপদাহে, আবহাওয়া ও ভাইরাসজনিত কারণে ডায়রিয়া, নিউমোনিয়াসহ ভাইরাস জ্বরের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, সর্দি-জ্বর ও পেটব্যথায় আক্রান্ত হয়ে জনজীবন বিপর্যস্ত। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

গত ছয়দিনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডায়রিয়া-নিউমোনিয়া ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৮৫ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এদের মধ্যে বেশির ভাগই শিশু, বৃদ্ধ ও নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে ২৫ জন রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

চিকিৎসকরা বলছেন, গরম আবহাওয়া ও ভাইরাসজনিত কারণে শিশু ও বৃদ্ধসহ সব বয়সের মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। ছয়দিনে তিন শতাধিক ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসে। এদের মধ্যে দুই শতাধিক রোগীকে বহির্বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে শিশুদের শুষ্ক স্থানে সাবধানে এবং বৃষ্টির পানি থেকে দূরে রাখাসহ সবাইকে খাবারের ক্ষেত্রে ও সাবধানতা অবলম্বনের কথা বলছেন চিকিৎসকরা।

সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিবন্ধন বইয়ের তথ্য মতে, গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত ডায়রিয়ায় ৩০ জন ও নিউমোনিয়ায় ৩৫ জন ও জ্বরে আক্রান্ত ৮৫ জন রোগীকে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে শিশুর সংখ্যায় বেশি। বর্তমানে হাসপাতালে ডায়রিয়ায় ও নিউমোনিয়ায় এবং জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৫২ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। দুপুর পর্যন্ত চিকিৎসা শেষে ১৬ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ভর্তি থাকা রোগীর মধ্যে বেশি শিশু।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শিশু বিশেষজ্ঞ ও আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা আরমান বিন আবদুল্লাহ বলেন, বৈরী আবহাওয়া ও ঠাণ্ডা-গরমে ভাইরাসজনিত কারণে বিশেষ করে শিশুরা নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্টসহ বেশ কয়েকটি রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। এছাড়া রোটা ভাইরাসের জীবাণুর কারণে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শিশুরা নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে।

এর মধ্যে প্রায় ৬৫ শতাংশ শিশুকে সুস্থ করতে হাসপাতালে ভর্তি করে টিকা দিতে হয়। শিশুদের শরীরে ঠাণ্ডা, গরম বা ভাইরাসজনিত কোনো জীবাণু যেন না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।