প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে দুর্নীতির মহোৎসব

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬

প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে দুর্নীতির মহোৎসব

রেজাউল করিম রাজু, নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) ৪:৪৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৬, ২০১৯

print
প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে দুর্নীতির মহোৎসব

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের বিরুদ্ধে শিক্ষকদের যাতায়াত ভাতা, বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়, স্লিপ, রুটিন মেইনটেনেন্স, প্রাক-প্রাথমিক, আন্তঃক্রীড়া, বিজয় ফুল, উপবৃত্তি, বুক কেরিং, ক্ষুদ্র মেরামত, টাইম স্কেল, বিল ভাউচার পাস, ডিপিএড ট্রেনিং, এরিয়া বিল, উৎসব ভাতা, বদলি, মাতৃত্বকালীন ছুটিসহ বিভিন্নখাতে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে উপজেলা শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারী ও কতিপয় শিক্ষক নেতাদের বিরুদ্ধে।

উপজেলা সদরসহ নিকটবর্তী বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ৭-৮ হাজার টাকা করে ভাতা বরাদ্ধ দেয়া হলেও দুরবর্তী বিদ্যালয় শিক্ষকদের মাত্র ৮শ টাকা করে ভাতা দেয়া হয়।

উপজেলা শিক্ষ অফিস প্রতিটি বিদ্যালয়কে স্লিপের ৫০হাজার টাকা থেকে ২২হাজার টাকা দিয়ে বায়োমেট্রিক মেশিন ক্রয়ের নির্দেশ প্রদান করেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসের নির্ধারিত প্রতিষ্ঠান আই টি পয়েন্ট, ভাই-ভাই সুপার মার্কেট (২য় তলা) পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড, কুমিল্লাসহ আরো দু‘টি প্রতিষ্ঠানের ভাউচার সরবরাহ করা হয়। অথচ মেশিনটির বাজার মূল্য ৪ হাজার টাকা। ১শ ৫১টি বিদ্যালয় থেকে বায়োমেট্রিক মেশিন বাবদ ২৭লাখ টাকা দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলা সহকারী শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও দৌলখাঁড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রমজান আলী বলেন, শিক্ষা অফিসের দুর্নীতির কথা বলে শেষ করা যাবেনা। শিক্ষা অফিস দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে।