ধুলা রোধে ‘ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’

ঢাকা, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭

ধুলা রোধে ‘ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’

নিজস্ব প্রতিবেদক ২:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০২, ২০১৯

print
ধুলা রোধে ‘ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’

পরিবেশ দূষণ মোকাবিলার অংশ হিসেবে ধুলি দূষণ কমিয়ে আনতে নগরীতে পানি ছিটানোর ‘স্পেশাল ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’ চালু করল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। এর আওতায় গতকাল রোববার থেকে সংস্থার ৯টি গাড়ি দ্বারা ডিএসসিসির আওতাধীন এলাকায় পানি ছিটায়। নিয়মিত এ কার্যক্রম চলবে।

গতকাল ডিএসসিসির নগর ভবন প্রাঙ্গণ থেকে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন মেয়র সাঈদ খোকন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কাকরাইল থেকে মৎস্যভবন, গুলিস্তান পর্যন্ত প্রতিদিন পানির গাড়ি দিয়ে দুই ট্রিপে পানি ছিটানো হবে। তোপখানা রোড, সেগুনবাগিচা, আনন্দবাজার, পলাশী, শাহবাগ, কাঁটাবন, সাতমসজিদ রোড, হাজারীবাগ, ঝিগাতলা, সায়েন্সল্যাব, নীলক্ষেত, হাতিরপুল, মগবাজার, কাকরাইল, শান্তিনগরসহ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতাধীন প্রায় সব এলাকায় সারা দিনে দুবার পানি ছিটানো হবে।

এ সময় খোকন বলেন, ধুলা দূষণ নিয়ন্ত্রণে ডিএসসিসি বরাবরই কাজ করছে। আদালত কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। ধুলা দূষণ নিয়ন্ত্রণের মূল দায়িত্ব পালন করে মূলত পরিবেশ অধিদফতর। কিন্তু নাগরিকদের কথা বিবেচনা করে আমরা রোববার থেকে একটি বিশেষ ক্র্যাশ প্রোগ্রাম চালু করছি। ডিএসসিসির যেসব প্রাইমারি রোডগুলো আছে, সেগুলোতে আমরা সকালে এবং বিকেলে দুই বেলা পানি ছিটিয়ে ধুলা এবং বায়ুদূষণ রোধ করার চেষ্টা করব।

তিনি বলেন, সড়কসহ বিভিন্ন স্থানে উন্নয়নের কাজ চলছে। এসব কাজের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ অনেকটা কষ্টকর। তারপরও অনিয়ন্ত্রিত অবস্থায় একেবারে যত্রতত্র কাজ করা আমরা অ্যালাউ করব না। যেসব স্থানে খোঁড়াখুঁড়ির মাধ্যমে অযথা যদি কেউ ময়লা ফেলে বা বায়ুদূষণের পরিবেশ সৃষ্টি করে রাখে, তাহলে আমরা প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করব।

মেয়র বলেন, ‘এই কর্মসূচির আওতায় সকাল ৬টা থেকে ৮টা ৩০ মিনিট এবং বিকালে নির্দিষ্ট সময়ে পানি ছিটানো হবে। এই কর্মসূচির আওতায় যেসব স্থানে কন্সট্রাকশন চলছে, সেখানে যদি সঠিকভাবে কাজ না হয় বা যেখানে সেখানে যদি মাটি পড়ে থাকে, তাহলে আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করব। যে কোনো নির্মাণ কাজ সঠিক ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে করতে হবে।’

এর আগে গত মঙ্গলবার রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলাকায় বায়ুদূষণ রোধে নীতিমালা প্রণয়নের জন্য উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জ এলাকায় অবৈধ ইটভাটা ১৫ দিনের মধ্যে বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নির্দেশ দেন আদালত।
সেই সঙ্গে রাজধানীর রাস্তা ও ফুটপাতে ধুলাবালি, ময়লা ও বর্জ্য অপসারণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্তর্বর্তীকালীন আদেশে ঢাকা শহরের যেসব এলাকায় উন্নয়ন ও সংস্কার কাজ চলছে, সেসব এলাকা ঘেরাও করে কাজের পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।