বাদলের একক গজল সন্ধ্যা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯ | ৯ কার্তিক ১৪২৬

সংস্কৃতি খবর

বাদলের একক গজল সন্ধ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক ৮:৪৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ০৫, ২০১৯

print
বাদলের একক গজল সন্ধ্যা

জমকালো আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো শিল্পী আমিন বাদলের একক গজল সন্ধ্যা। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় গ্র্যাজুয়েটস ক্লাবের আয়োজনে শুক্রবার (৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে এই গজল সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়।

গজল সন্ধ্যায় আমিন বাদল শ্রোতাদের ‘ক্যয়সে সকুন পাউঁ তুঝে দেখনেক্য বাদ, গুনচায়্য শখ লাগা হ্যয়, দিল ম্যয় ইক ল্যহেরসি উঠি হ্যয় আভি, কাভি আহালাব প্যমচল গ্যয়িসহ বিভিন্ন প্রসিদ্ধ গজল গেয়ে শুনান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক মঈনুল হাসান মিতুল। এ সময় উর্দু গজলের নানা প্রসঙ্গ তুলে ধরেন জাবেদ হোসেন।

শিল্পী আমীন বাদল, ১৯৬২ সালের ১৫ আগস্ট চাঁদপুর জেলার এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি শৈশব থেকেই সঙ্গীতের প্রতি দারুণ অনুরক্ত ছিলেন। স্কুলজীবনে সঙ্গীতে হাতেখড়ি ‘চাঁদপুর সঙ্গীত নিকেতনে’। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভূগোল বিভাগে অনার্সসহ মাস্টার্স করেন।

ছেলেবেলা থেকেই শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের প্রতি আমীন বাদলের ছিল গভীর অনুরাগ ও আগ্রহ। তিনি শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে তালিম নেওয়া শুরু করেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব ওস্তাদ নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরীর কাছে। এছাড়াও তিনি উপমহাদেশের শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের অনেক পুরোধা পণ্ডিত ওস্তাদগণের সান্নিধ্য লাভ করেন। শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের প্রতি গভীর প্রেম, অধ্যবসায় আর ওস্তাদগণের তালিম অনুসরণ করে আমীন বাদল খুব দ্রুতই পৌঁছে যান সঙ্গীত জ্ঞানের উচ্চ স্তরে।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবন শেষে শুরু হয় তার সঙ্গীত জীবনের নবযাত্রা, আত্মনিবেদন করেন শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে। ইতিমধ্যে তিনি বাংলাদেশ বেতার এবং বাংলাদেশ টেলিভিশনের নিয়মিত শিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়ে পরবর্তীতে সর্বোচ্চ গ্রেড তথা ‘বিশেষ গ্রেড’ লাভ করেন। উত্তর ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীত ‘খেয়াল, ঠুমরি ও গজল’-এ তিনি আরও প্রতিষ্ঠা লাভ করতে থাকেন।