মির্জাগঞ্জে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে যুবকের আত্মহত্যা

ঢাকা, বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ | ৩১ আষাঢ় ১৪২৭

মির্জাগঞ্জে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে যুবকের আত্মহত্যা

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি ৬:৩০ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০২০

print
মির্জাগঞ্জে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে যুবকের আত্মহত্যা

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে কীটনাষক পানে মনমোতন হাওলাদার (৩৫) নামে এক যুবক আত্মহত্যা করেছে। গত বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার উত্তর আমড়াগাছিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মনমোতন উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের উত্তর আমড়াগাছিয়া গীলাতলী গ্রামের মৃত মনোরঞ্জন হাওলাদারের ছেলে। সুদি মহাজনদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গত ১২ মার্চ মনমোতন মির্জাগঞ্জ থানায় রফিক, শহিদ বিশ্বাসসহ ৭/৮ বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

মনমোতনের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার উত্তর আমড়াগাছিয়া এলাকার রফিক দোকানদার, শহিদ বিশ্বাস, করিম ও রহিম সরদারসহ প্রায় ২৮ জনের কাজ থেকে চওড়া সুদে টাকা নিয়ে মুরগির খামার ও চায়ের দোকান দেন মনমতোন। সুদের টাকা ঠিক মতো পরিশোধ না করায় সুদি মহাজননার তাকে নানাভাবে গালাগালিসহ মারধর করতো। এমনকি সুদের বিনিময়ে তার জমি লিখে নেওয়ার অভিযোগও করেন পরিবারের লোকজন।

মনমোতনের মেয়ে মিতু বললে, টাকার জন্য প্রায়ই ওই সব লোকেরা বাড়িতে এসে গালিগালাজ করতো। ঘটনার দিন বিকালে আমাদের খামারের কর্মচারি গোপাল সরকার বাড়িতে এসে মাকে বলে বাবা মির্জাগঞ্জ গেছেন। আপনাকে ( স্ত্রী) মির্জাগঞ্জ যেতে বলেছে। এরপর গোপাল ও রফিক বাড়িতে এসে বাবার কথা কোথায় আছেন জানতে জান। কিছুক্ষন পরে গোপাল আমার (মেয়ে) কাছে এসে ঘরের চাবি চায়। পরে আমি দ্রুত মির্জাগঞ্জ চলে যাই। সেখানে মা-বাবাকে না পেয়ে দ্রুত বাড়িতে ফিরে এসে আামাদের মুরগির খামারের কাছে গেরেজের ভিতর থেকে বাবার ডাকচিৎকার শুনতে পেয়ে গেরেজের ভিতরে ঢুকে দেখি বিষের বোতল এবং জানালা ভাঙ্গা বাবা প্রায় অজ্ঞান অবস্থায় পরে আছে।

ওই অবস্থায় বাবাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাবার অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে বরিশাল শেবাচিমে প্রেরন করে। বরিশাল যাওয়ার পরে বাবার (মনমমেতান) মারা যায়।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা মির্জাগঞ্জ থানার এসআই মো. সাইদুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিদর্শন করে চওড়া সুদের সত্যতা পাওয়া যায়। কিছুদিন আগে রফিকসহ কয়েকজন সুদ ব্যবসায়ীরা মতমোতনের সাথে খারাপ আচারনও করে বলে জানা যায়। হয়তো এসব ঘৃণার কারনে এহেন ঘটনা ঘটাতে পারে। মির্জাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এমআর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, এখন পর্যন্ত পরিবারের কাছ থেকে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।