সড়কে জনদুর্ভোগ চরমে

ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬

সড়কে জনদুর্ভোগ চরমে

ইউসুফ আলম সেন্টু, (পটুয়াখালী) বাউফল ২:২৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২০

print
সড়কে জনদুর্ভোগ চরমে

পটুয়াখালী বাউফলে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের গ্রামের বাড়ি মধ্য নওমালা থেকে কালাইয়া নওমালা ডিসি সড়ক পর্যন্ত প্রায় আড়াই কিলোমিটার কার্পেটিং সড়কের নির্মাণ কাজ দুই বছর ধরে বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায় ওই এলাকায় মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের আওতায় দ্বীপ এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এক কোটি ৫০ লাখ ৯১ হাজার ৯৪০ টাকা ব্যয়ে দুই হাজার ৭০ মিটার দৈর্ঘ্য সড়কের নির্মাণ কাজ ২০১৮ সালে কাজ শুরু করে। কাজের ৫০ ভাগ অগ্রগতির পর ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটি কাজ শেষ না করে ফেলে রাখে।

মাদ্রাসা শিক্ষক সুলতানা জাহান বলেন, এ সড়কে কষ্টের কোন শেষ নেই, খুব দ্রুত কাজটি শেষ করা উচিত। এই সড়কটি দিয়ে নওমালা আবদুর রশিদ খান ডিগ্রি কলেজ, নওমালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম নওমালা নেছারিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসা, মধ্য নওমালা সরকারি প্রাইমারি স্কুল, পশ্চিম নওমালা সরকারি প্রাইমারি স্কুল, মধ্য নওমালা সালেহিয়া দাখিল মাদ্রাসা, বজলুর রহমান ফাউন্ডেশন গালর্স সেমিনারী, বজলুর রহমান সরকারি প্রাইমারি স্কুল ও বিডিসি সরকারি প্রাইমারি স্কুলের পাঁচ সহস্রাধিক শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষ যাতায়াত করেন।

এছাড়াও এই সড়কটি দিয়ে পাশ্ববর্তী দশমিনা উপজেলার বেতাগী সাংকিপুরা গ্রামের মানুষ যাতায়াত করে থাকেন। সড়কটির নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় যানবাহন চলাচল করতে পারছেনা। সড়কটির কিছু অংশে বেট বা মাটি কেটে রাখা হয়েছে। আবার কোন অংশে বালু ও খোয়া ফেলে রাখা হয়েছে। ইট রাখা হয়েছে সড়কের মধ্য স্থলে। যার ফলে হেঁটে যাতায়াত করাও কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

নওমালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কে এম নাসির উদ্দিন বলেন, ‘সড়কটির কাজ দ্রুত শেষ করতে আমি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানসহ সংশ্লিষ্ট অফিসে একাধিক বার যোগাযোগ করেছি। কিন্তু তারা কর্ণপাত করেননি। দুই বছর পর্যন্ত সড়কটির নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকায় জনসাধারন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন’।

উপজেলা প্রকৌশলী সুলতান হোসেন বলেন, আমি এ কর্মস্থলে নতুন এসেছি। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।