পটুয়াখালীতে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার

ঢাকা, শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৭ ফাল্গুন ১৪২৬

পটুয়াখালীতে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ৬:১৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০২০

print
পটুয়াখালীতে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার

পটুয়াখালীতে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে একজন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত আরেকজনের ঝুলন্ত এবং অপরজনের মরদেহ নদী থেকে উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে বাউফল উপজেলায় আমগাছে ঝুলন্ত অবস্থায় আল আমিন আকন (১৬) নামে এক দাখিল পরীক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আল আমিন এবার বাউফল ছালেহিয়া ফাজিল মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার্থী ছিল।

নিহতের বাবা আবদুর রহিম আকন বলেন, বৃহস্পতিবার (০৯ জানুয়ারি) বিকেলে মাদরাসার গণিত শিক্ষক হাবিবুর রহমানের কাছে প্রাইভেট পড়তে যায় আল আমিন। প্রতিদিন এশার নামাজের আগে বাড়ি এলেও কালকে আসেনি। রাত ১১টার দিকে মোবাইলে কল দিলে ধরেনি। সকালে পুকুরের উত্তর পাশের আমগাছে তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখি আমরা।

বাউফল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে মাদরাসা ছাত্রের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে মরদেহ মর্গে পাঠায় পুলিশ।

এদিকে বিকেলে সাড়ে ৪টার দিকে পটুয়াখালী-বরিশাল মহাসড়কের গাবুয়ায় বাসচাপায় এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান।

ওসি বলেন, বাসচাপায় নিহত ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে বাসটি আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এর আগে সকাল সাড়ে ৬টার দিকে গলাচিপা উপজেলার আগুনমুখা নদীতে দুই স্পিডবোটের সংঘর্ষে নিখোঁজ হারুন হাওলাদারের (৩২) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। হারুন দক্ষিণ পানপট্টি এলাকার শাজাহান হাওলাদারের ছেলে।

গলাচিপা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার মোর্শেদ বলেন, সোমবার (০৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় পানপট্টি লঞ্চঘাট সংলগ্ন নদীতে দুই স্পিডবোটের সংঘর্ষ হয়। এ সময় তিনজনকে উদ্ধার করা হলেও হারুন নিখোঁজ হয়। শুক্রবার সকালে নদী থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।