পা আটকে যায় কাদায়

ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ২ আশ্বিন ১৪২৬

পা আটকে যায় কাদায়

উত্তম গোলদার, মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) ৫:২২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯

print
পা আটকে যায় কাদায়

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ ঝাটিবুনিয়া গ্রামের প্রধান রাস্তার সঙ্গে সংযুক্ত ঝাটিবুনিয়া জে আর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের যাওয়া রাস্তাটি। পানি আর কাদায় মিলিত হয়ে চাষাবাদের জমির মতো হয়ে আছে রাস্তাটি। রাস্তায় পা দিয়ে আটকে যায় কাদায়।

বেহাল এ রাস্তা দিয়ে ঝাটিবুনিয়া জে আর বালিকা, ম. ই ইসহাক মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও এনডব্লিউ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ পাঁচটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রী এবং ইউনিয়নের দক্ষিণ ঝাটিবুনিয়া মহিষকাট ও শ্রীনগরসহ ৫-৬টি গ্রামের মানুষ চলাচল করে।

জে আর বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী মোসা. লামিয়া আক্তার বলেন, শুকনো মৌসুমে রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করতে পারলেও বৃষ্টির সময় এখান দিয়ে চলাচল করা কঠিন হয়ে পড়ে। ছাত্রছাত্রীদের এ সময় কাদা মাড়িয়ে স্কুলে যেতে হয়। অনেকেই কাদা-পানিতে ভিজে যায়।

দক্ষিণ ঝাটিবুনিয়া গ্রামের মো. বজলুর রহমান সিকদার জানান, এ রাস্তার মতো মির্জাগঞ্জে আমার জানা মতে আর কোনো রাস্তা নেই। এ ইউনিয়নের প্রায় সব রাস্তাঘাট পাকা। কাদাযুক্ত রাস্তায় চলাচলে অনেক সময়ে ক্লান্ত হয়ে পড়ি। তবে বর্ষা মৌসুমে দুর্ভোগের যেন শেষ থাকে না। আমড়াগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সুলতান আহম্মেদ বলেন, রাস্তাটি সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট অধিদফতরকে জানানো হবে।

মির্জাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মো. সুলতান হোসেন বলেন, রাস্তাটি পাকা করার ব্যাপারে সরেজমিন দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন পাঠানো হবে।

মির্জাগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান খান মো. আবু বকর সিদ্দিকী জানান, রাস্তাটি দিয়ে চলাচলে ওই এলাকার লোকজনের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দ্রুত রাস্তাটি পাকা করার ব্যবস্থা করা হবে।