সরকারি জমিতে অবৈধ স্থাপনা তোলার হিড়িক

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১ আশ্বিন ১৪২৬

সরকারি জমিতে অবৈধ স্থাপনা তোলার হিড়িক

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি ৯:৫৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯

print
সরকারি জমিতে অবৈধ স্থাপনা তোলার হিড়িক

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার মৎস্যবন্দর মহিপুরে পাউবো ও বনবিভাগের জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা তোলার হিড়িক পরেছে। সংরক্ষিত মহিলা আসনের ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে এসব স্থাপনা তোলা হয়েছে এমন অভিযোগ স্থানীয়দের। মহিপুর থানা ও বনবিভাগের অফিসের সামনে মাত্র ১৫ গজ দুরে এসব অবৈধ ঘর তোলা হলেও সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তারা রয়েছে নিরব।

মহিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের স্কুলে যাওয়া আসার রাস্তার দুই পাশ দখল করে এসব স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ রয়েছে। বনের মধ্যে এসব অবৈধ স্থাপনা তোলা হলেও বনবিভাগ বলছে এ জমি তাদের না।

অবৈধ ঘর নির্মাণকারী খাদিজা বেগম জানান, তারা গরীব মানুষ। থাকার জায়গা নাই। খালি জায়গা পেয়ে ঘর তুলছেন তিনি। তিনি ছাড়াও আরও ৭টি ঘর তৈরী করেছে স্থানীয় কয়েকজন। ঘর তৈরী করতে কাউকে কোন টাকা দেওয়া হয়নি। আর কেউ বাধাও দেয়নি।

তিনি আরও বলেন, শুধু তিনিই নয়, বনবিভাগ ও পাউবোর জায়গায় পুর্বে আরও কয়েকশ ঘর তুলেছে স্থানীয়রা।

সংরক্ষিত মহিলা আসনের মেম্বর বিউটি বেগম বলেন, মসজিদের ঝাড়ুদার ইব্রাহিমকে একটি ঘর তুলতে সহযোগিতা করছেন। ওই ঝাড়–দারের থাকার কোন জায়গা নাই। তাই তিনি সহযোগিতা করছেন। তিনি নিজের জন্য কোন ঘর তুলছেন না।

মহিপুর বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, বনবিভাগের জমিতে কেউ ঘর তোলেনি। যে জায়গায় ঘর তোলা হচ্ছে ওই জমি তাদের নয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়া সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী খান মোহাম্মাদ অলিউজ্জামান বলেন, অবৈধ স্থাপনা তোলার খবর পেয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ করার জন্য অফিসের লোক পাঠিয়েছেন।