বামনায় ১৫ গার্ডার ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ  

ঢাকা, বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯ | ১২ আষাঢ় ১৪২৬

বামনায় ১৫ গার্ডার ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ  

বামনা (বরগুনা) প্রতিনিধি ৮:১৬ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০১৯

print
বামনায় ১৫ গার্ডার  ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ   

বরগুনার বামনা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের সঙ্গে অভ্যান্তরীণ যোগাযোগ সহজ করার লক্ষে প্রায় দুই যুগ আগে উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ছোট ছোট খালে গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ করে। বর্তমানে উপজেলার অন্তত ১৫টি গার্ডার ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ফলে ওই ব্রিজ ধসে যেকোন মুহুর্তে ঘটতে পারে প্রাণহানীসহ বড় ধরণের দুর্ঘটনা।

উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৫ সালে বামনা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করতে এ উপজেলায় প্রায় ২০টি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ করে এলজিইডি।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকাঘুরে দেখা গেছে, তৎকালীন সময়ে নির্মিত ওই গার্ডার ব্রিজগুলো বর্তমানে চলাচলের অনুপোযোগী অবস্থায় রয়েছে। ব্রিজের নিচে লোহার বীমগুলো ক্ষয় হয়ে গেছে। কোন কোন ব্রিজের লোহার গার্ডার গুলো মাটিতে ডেবে যাওয়ায় ব্রিজটি যেকোন মুহুর্তে ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে। এছাড়াও এ অঞ্চলে লবন পানির প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় লোহার গার্ডার গুলো ক্ষয় হয়ে গেছে। কোন কোন ব্রিজে যানবাহন এমনকি পথচারী পারাপারে সময় ব্রিজগুলো দোলনার মতোন দোলে।

খোলপটুয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. মোস্তফা ফকির বলেন, আমি কখনো রামনা বৈকালীন বাজার ব্রিজে এক মুহুর্ত দাড়িয়ে থাকি না।ব্রিজটিতে উঠলেই এটি দুলতে শুরু করে। ফলে ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ার ভয়ে সহজে এ পথ দিয়ে যাতায়াত করিনা। তবে উপজেলার সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় আছে তালেশ্বর-দধিভাঙ্গা ব্রিজটি। এটির গার্ডারের পিলারগুলো দেবে যাওয়ায় যানবাহন ও পথচারীরা আতঙ্ক নিয়ে পাড়াপাড় হয়।

উপজেলার চারটি ইউনিয়নের ঝুঁকিপূর্ন গার্ডার ব্রিজগুলো হলো, সদর ইউনিয়নের পূর্ব সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সামনের ব্রিজ, গাজীর পুল নুরয়ানী মাদ্রাসা সংলগ্ন ব্রিজ, মা শাহাভানু ফাউন্ডেশনের ব্রিজ, আলীর পুল, সোনাখালী বাজার ব্রিজ, বুকাবুনিয়া ইউনিয়নের বুকাবুনিয় বাজার সংলগ্ন বুকাবুনিয়া ব্রিজসহ ১৫টি ব্রিজ রয়েছে এ তালিকায়।

বামনা উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি)মীর আখতারুজ্জামান বলেন, তালেশ্বর-দধিভাঙ্গা সংযোগ ব্রিজটি অধীক ঝুঁকিপূর্ন। এ ব্রিজটি পুনরায় নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এছাড়া উপজেলার অন্যান্য গার্ডার ব্রিজ গুলো কতটুক ঝুঁকিপূর্ণ এ ব্যাপারে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে।