বিদ্যুতের এক খুঁটির দাম দেড় লাখ টাকা!

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

বিদ্যুতের এক খুঁটির দাম দেড় লাখ টাকা!

বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি ৫:২৪ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯

print
বিদ্যুতের এক খুঁটির দাম দেড় লাখ টাকা!

পটুয়াখালী বাউফল উপজেলার নাজিরপুর ইউপির বড়ডালিমা গ্রামে সংযোগ লাইনের একটি খুঁটি পরিবর্তনে আবেদনকারীর কাছে এক লাখ ৬৭ হাজার ৪৮৯ টাকা ব্যয় নির্ধারণ করেছে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি। এতে হতম্ব হয়েছেন আবেদনকারী বড়ডালিমা গ্রামের ইদ্রিস গোলদার ছেলে মো. তুহিনসহ স্থানীয়রা।

অভিযোগে জানা গেছে, আবেদনকারী তুহিনের বাড়ির সামনে তাদের নিজস্ব জমিতে স্থাপিত পল্লী বিদ্যুতের একটি খুঁটি একই জমির ওপর সড়কের পাশে স্থানান্তর করে সেখানে একটি মসজিদ ভবন স্থাপনের পারিবারিক ও স্থানীয়দের সিদ্ধান্ত হয়। খুঁটি স্থানান্তরে গত ৫ মার্চ পল্লী বিদ্যুতের বাউফল জোনাল অফিসে নিয়মানুযায়ী এক হাজার ৭২৫ টাকা জমা দিয়ে আবেদন করেন তুহিন। কিন্তু গত ৬ মে পটুয়াখালী পল্লীবিদ্যুতের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার খুঁটি স্থানান্তরে এক লাখ ৪৩ হাজার ১৫৩ টাকা ও ১৫ পার্সেন্ট হারে ভ্যাট ২১ হাজার ৪৭৩ টাকা এবং ২ পার্সেন্ট হারে ট্যাক্স দুই হাজার ৮৬৩ টাকা মিলে এক লাখ ৬৭ হাজার ৪৮৯ টাকা খরচ নির্ধারণ করে জমা দিতে বলেন।

অপরপদিকে নিজ বাড়িতে পোতা বিদ্যুতের খুঁটি থেকে সুলতানাবাদ গ্রামের রাসেল চৌকিদারের নামে একজনের বাড়ির নির্মাণাধীন সংযোগ লাইনের খুঁটি পরিবর্তনে বাউফল জোনাল অফিসসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বরাবর আবেদন করেন আবুল বশার। তবে পল্লীবিদ্যুৎ গোপনে ওই লাইন সংযোগ দেওয়ায় অপূরণীয় ক্ষতি থেকে রক্ষা পাননি তিনি।

এ ব্যাপারে পটুয়াখালী পল্লীবিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার মনোহর কুমার বিশ্বাস বলেন, এত টাকা কেন ধরা হবে। আমি খোঁজ নিয়ে দেখব। ডিজাইন দেখব। এর সঙ্গে অন্য কোনো বিষয় আছে কিনা খতিয়ে দেখব।