হারু পার্টির খোলা চিঠি

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ | ১২ মাঘ ১৪২৮

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

হারু পার্টির খোলা চিঠি

প্রশান্ত ভৌমিক
🕐 ২:৪৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২১

হারু পার্টির খোলা চিঠি

সুপ্রিয় আপনদা,
আশা করি ভালো আছেন। আপনি হয়তো আমাদের ওপর বেজায় রেগে আছেন বিশ্বকাপে আমাদের এই রেজাল্টের কারণে। রাগ কইরেন না ভাই। আমরা আসলে আপনার কথা চিন্তা কইরাই ভালো করে মন দিয়ে খেলিনি। চিন্তা করে দেখেন ভাই, বিশ্বকাপের ঠিক আগে আমরা মিরপুরে অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডরে কী উপতা করে মাইর দিছিলাম! সেই দুই দলই এইবার ফাইনাল খেলতেছে। যেই জিতুক, সেই আমাদের কাছে হারু পার্টি ছিল।

ফলে, যুক্তিবিদ্যার নিয়ম অনুযায়ী আমরাই চ্যাম্পিয়ন। সেটা ছিল মিরপুর। আর এই ওমান, দুবাই এসব জায়গায় গিয়ে খেলতে ভালো লাগে না। কারণ কী জানেন? আপনি! ঢাকায় খেলা মানে আপনি হেড। আপনি খেলা থেকে শুরু করে ড্রেসিংরুমের টয়লেট কোন ব্র্যান্ডের হারপিক দিয়ে ধোয়া হবে সব ব্যাপারে মতামত জানাতে পারেন। কিন্তু দুবাইতে সেটা সম্ভব নয়। তাই আমরা চাইছিলাম যত তাড়াতাড়ি সেখান থেকে ফিরে আসা যায়। আর তাছাড়া দুবাইতে যে মাঠে খেলা হচ্ছিল, সেই মাঠের ড্রেসিংরুমের আয়নাটা ভালো নয়। ফলে আমরা নিজেদের চেহারা দেখতে অসুবিধা হতো। আপনি জানেন আমাদের ক্যাপ্টেন সাহেব পেইন কিলার খেয়ে খেলতে নামেন। দুবাইয়ে যে পেইন কিলার পাওয়া যেত সেগুলা ক্যাপ্টেন সাহেবের শরীর ঠিক মানিয়ে নিতে পারত না। ফলে খেলায় মনোযোগ দেওয়া অসম্ভব ব্যাপার ছিল। তারপর বিভিন্ন মাঠে খেলা মানে বিভিন্ন হোটেলে থাকা। একেক হোটেলের বিছানা একেক রকম। ফলে, ঘুমের মধ্যে স্বপ্নও দেখতাম একেক রকম। এতসব সমস্যা নিয়ে কি খেলা যায়? এরপর দুবাইতে আপনাকেও বায়ো-বাবলের কারণে আমাদের থেকে আলাদা থাকতে হতো। কথাবার্তা ঠিকভাবে বলতে পারতাম না। আমাদের ফোনের সিম ছিল না। ওয়াইফাই ব্যবহার করে কথা বলতে হতো। আপনার সব নির্দেশ আমরা শুনতে পেতাম না ঠিকঠাক। ফলে, সেগুলো মানাও সম্ভব হতো না। এসব কারণ মিলিয়ে আমরা মিরপুরে খেলতে আগ্রহী।

কাক্কু, আপনি পারবেন। এহে, আপনাকে কাক্কু বলে ফেললাম। কিছু মনে নিয়েন না। আপনি পারবেন একটা ব্যবস্থা করতে। এখন থেকে আমাদের সকল খেলা মিরপুরে আয়োজন করতে চেষ্টা করেন প্লিজ। এই তো কিছুদিনের মধ্যেই পাকিস্তানের সঙ্গে খেলা মিরপুরে। দেখেন, এইবার পাকিস্তানের কী হাল করি!

আরেকটা কথা কাক্কু, ডোমিঙ্গো সাহেব রে বইলেন উইকেট পড়ার কিংবা আমাদের হারের উপক্রম হলে যেন একটু হাসাহাসি কম করে। সেই সময় ওনার এই হলদেটে দাঁতগুলা দেখতে ভালো লাগে না। বমি আসে। আইজ আর কিছু কইলাম না কাক্কু। ভাবি রে আমাদের সালাম দিয়েন।

ইতি,
হারু পার্টির মেম্বারগণ

 
Electronic Paper