ম্যানেজার জামাই

ঢাকা, রবিবার, ২৯ মে ২০২২ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

ম্যানেজার জামাই

সুলতান মাহমুদ
🕐 ৩:১৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৩, ২০২১

ম্যানেজার জামাই

রাজন তালুকদার সরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা। বাড়ি টাঙ্গাইলে হলেও সিলেট বিভাগে পোস্টিং। ব্যাংকে সিনিয়র অফিসার হিসেবে জয়েন করার এক বছর পরেই ম্যানেজারের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

বাড়ির বড় সন্তান হওয়ায় পরিবার তাড়াতাড়ি বিয়ের ব্যবস্থা করেছে। রাজনের হবু শ্বশুর ব্যাংকে এসে ম্যানেজার জামাই দেখেই পছন্দ করেছেন। তিনি অত লেখাপড়া জানেন না। তবে বেশ গণ্যমান্য ব্যক্তি। ব্যাংকে গেলে ম্যানেজারের রুমে বসেই সেবা গ্রহণ করেন। এ কারণে তিনি ব্যাংকে ক্যাশিয়ার আর ম্যানেজার ছাড়া কিছু বোঝেন না। আত্মীয়স্বজন সবার কাছে গর্ব ভরে ম্যানেজার জামাইয়ের গল্প করেছেন। বিয়ের দুই বছর পরে রাজনের প্রমোশনাল পোস্টিং হলো ঢাকার একটি করপোরেট অফিসে। প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে। ঢাকায় জয়েন করার পর শ্বশুর জানতে পারলেন, মেয়ের জামাই আর ম্যানেজার নেই। এখন তিনি একটি শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার। প্রমোশনে খুশি হলেও তার মাথায় ঢুকছে না কীভাবে একজন ম্যানেজার আবার অফিসার হতে পারে। তার ধারণা ম্যানেজার প্রমোশন পেলেও ম্যানেজারই থাকবে কিন্তু আবার অফিসার হবে কীভাবে? মেয়েকে বললেন জামাইয়ের প্রমোশন হয়েছে নাকি ডিমোশন হয়েছে ভালো করে খোঁজ নিতে। লোকজনের কাছে কী পরিচয় দেবেন এই ভেবে খুব কষ্ট পাচ্ছেন। রাজনের বউও বলল আবার ম্যানেজার হয়ে বাবার কষ্ট লাঘব করতে। শ্বশুরের এই কষ্ট দেখে অবশেষে রাজনও ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট দফতরে যোগাযোগ করে আবার ম্যানেজারের দায়িত্ব নিয়ে উপজেলা শহরে চলে গেলেন!

তক্তার চালা, সখীপুর, টাঙ্গাইল

 
Electronic Paper