অফার

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

অফার

জেলি খাতুন ৩:৩৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০

print
অফার

নিত্যদিনের নিয়ম অনুযায়ী সকালে চা-নাস্তা রেডি করে টেবিল সাজিয়ে রেখেছে ফুলমতি ভাবি। কিন্তু আজ ঘটনাগুলো নিত্যদিনের মতো ঘটছে না। একটু অস্বাভাবিক লাগছে। এতক্ষণে ফুলবাবু ভাইয়ের অফিস যাওয়ার জন্য তাড়াহুড়ো করার কথা কিন্তু না কোনোটাই ঘটছে না। শুধ্ ুআওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। আওয়াজ মোটেও কোনো সুরেলা কণ্ঠের নয়। একদম কর্কশ। সেটাও আবার ফুলমতি ভাবির ঘর থেকে।

একপা দু’পা করে হাঁটতে হাঁটতে ভাবি দোতলায় উঠল। তারপর যা দেখল রীতিমতো অবাক। বাড়ির সকলেই তার ঘরে বসে কীসের জানি সিদ্ধান্তে আসার কথা বলছে। ব্যাপারটা পরিষ্কার নয়।

আর একটু এগিয়ে গিয়ে প্রশ্ন করার আগেই তার বড় ননদ বলল, ফুলমতি, এদিকে আয়।

—হ্যাঁ আপা, বলেন। কোনো সমস্যা সবাই এখানে আমি তো কিছু বুঝতে পারছি না।

তার বড় ননদ কিছু বলার আগেই ফুলবাবু ভাই বলে উঠল, এমন ভাব করছে যেন ভাজা মাছটা উল্টে খেতে জানে না। বড় আপা শোনো, এ বউ নিয়ে আর সংসার করা যাবে না। যাবে না, যাবে না।

—থাম তো। আমাকে একটু কথা বলতে দে।

ওসব কথাবার্তা শুনে ফুলমতি ভাবির মাথা যেন চক্কর দেওয়া শুরু করল।

—আচ্ছা ফুলমতি, তুই যদি অন্য কাউকে ভালোই বাসতি তাহলে ফুলবাবুকে বিয়ে করলি কেন বিয়ের আগে বলতে পারতি।

—আপা, আপনি কী বলছেন এসব

—হ্যাঁ ঠিক বলছি। আর যা বলছি প্রমাণ নিয়ে বলছি।

—মানে

—আচ্ছা দুলালের বাসা কোথায় আমরাই এ ঝামেলা মিটিয়ে দিই।

—আপা কী বলছেন এসব। কোন দুলাল, কীসের দুলাল

ফুলবাবু ভাই চিৎকার করে বলল, একদম কথা ঘোরাবে না। রাত একটায় এসএমএস করে দুলাল। আবার নামও ফোনে সেভ করা দুলাল অফার।

—মানে দেখি কোথায়

ফুলমতি ভাবি ফোনটা হাতে নিয়ে এসএমএস-টা দেখে যেন একটা স্বস্তির নিঃশ^াস ফেলল। তারপর তার বড় ননদকে দিল। বলল, আপা দেখেন।

বড় ননদ হাসতে শুরু করল। একে একে পরিবারের সকলেই দেখল মুহূর্তেই পুরো ঘরে হাসির শব্দ! কারণটা হলো এসএমএস দুলাল অফার নয়, লেখা ছিল ডুয়েল অফার!