শরীফ সাহেবের নির্বাচন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

শরীফ সাহেবের নির্বাচন

শিমুল শাহিন ৬:০৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২০, ২০২০

print
শরীফ সাহেবের নির্বাচন

ব্যালকনিতে নিজের ইজিচেয়ারটায় একটু আয়েশ করে বসলেন শরীফ সাহেব। আজকাল কোথাও যে একটু শান্তিতে বসবেন তা হচ্ছে না! সারা রাত বিছানায় এপাশ-ওপাশ করতে করতে যখন ভোরবেলাটায় ঘুমটা চোখে আসে তখনই মাইকের তীব্র শব্দ কাঁচা ঘুমটা ভাঙিয়ে দিয়ে যায়!

আর একটু বেলা গড়ালেই শুরু হয় মিছিল আর কটু কথার স্লোগান! শুধু কী তাই? মিনিট পাঁচেক পরপর কলিংবেল বাজাতেই থাকে একেকজন ভোট চাওয়ার অজুহাতে! বৃদ্ধ বয়সে এত যন্ত্রণা কাহাতক সহ্য করা যায়! রীতিমতো অতিষ্ঠ শরীফ সাহেব! শুধু শরীফ সাহেবই নয়, অতিষ্ঠ হয়ে গেছে বাড়ির প্রত্যেকটা সদস্য! এমনকি কাজের মেয়েটাও বারবার দরজা খুলতে খুলতে অতিষ্ঠ হয়ে গেছে! হয়ত কাজ ছেড়ে চলেও যেত, কিন্তু এতদিনের মায়া ত্যাগ করে যেতে পারেনি মেয়েটা।

ইজিচেয়ারটায় বসে শরীফ সাহেব ভাবছিলেন এখনকার কথা আর পুরোনো দিনের কথা! পুরোনো দিনের নির্বাচনকালীন চিত্রগুলো মনে করতেই আনন্দের আতিশয্যে চোখ দুটো চকচক করে উঠল তার!

পুরোনো দিনগুলো মনে করতে করতে যেন অন্যজগতে চলে গিয়েছিলেন শরীফ সাহেব। হঠাৎ কাঁধে কারো স্পর্শ পেতেই সংবিত ফিরে পেলেন। তাকিয়ে দেখলেন তার স্কুলপড়ুয়া নাতি শিহাব কাঁধ ধরে ঝাঁকিয়ে ডাকছে, ‘দাদু, ও দাদু।’
শরীফ সাহেব সাড়া দিলেন, ‘হুম, বলো দাদুভাই!’
‘তুমি একা একা এখানে বসে কী এত ভাবছ?’
‘তেমন কিছু না দাদুভাই। আমাদের আগের সময়ের নির্বাচনগুলোর কথা ভাবছিলাম! আহা, কত সুন্দর সময় ছিল তখন- এত চিৎকার চেঁচামেচি ছিল না, অশান্তি ছিল না, মারামারি ছিল না! যোগ্য আর সৎ প্রার্থী হলে লোকে এমনিতেই ভোট দেবে- এটা কে বোঝাবে এখনকার রাজনীতিবিদদের!’
কথা শেষ না হতেই মিসেস শরীফ এসে পাশে বসে বললেন, ‘কী এত কথা হচ্ছে দাদু-নাতির?’
‘তেমন কিছু না রাহেলা। রাজনীতি নিয়ে কথা বলছিলাম দাদু নাতি মিলে!’
মুখে একটা পান গুঁজতে গুঁজতে অনেকটা অবজ্ঞার সুরে রাহেলা বেগম বললেন, ‘তুমি আবার রাজনীতির কী বোঝো! খবরদার আমার নাতিটাকে ভুলভাল কিছু শেখাবে না!’

নাতির সামনে এমন কথায় অপমানিতই বোধ করলেন শরীফ সাহেব! রাগান্বিত হয়ে বললেন, ‘কী বলো তুমি! আমি ভুলভাল শেখাব মানে? কীসব নির্বাচন করে এহনকার লোকজন! আমি নিজেও তো একবার নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলাম। নির্বাচিতও হয়েছিলাম। কই, আমাকে তো একটা টাকাও খরচ করতে হয়নি! এরকম মাইকিংও করে বেড়াতে হয়নি! তুমি জানো, সৎ প্রার্থীরা এমনেই জেতে!’ চোখ কপালে তুলে রাহেলা বেগম বললেন, ‘তুমি নির্বাচন করেছিলে? দীর্ঘ চল্লিশ বছর সংসার করলাম তোমার সঙ্গে- কখনো তো দেখিনি, শুনিনিও!’
‘তখন তোমার সঙ্গে আমার বিয়ে হয়নি! আর তুমি তখন বয়সেও অনেকটা ছোট ছিলে তাই জানো না!’
অবাক হয়ে রাহেলা বেগম জিজ্ঞেস করলেন, ‘বলো কী! তা কীসের নির্বাচন করেছিলে তুমি?’
আমতা আমতা করে শরীফ সাহেব উত্তর দিলেন, ‘স্কুলের ক্লাস ক্যাপ্টেন নির্বাচন!’