গ্যাসের দামে ভোক্তা ঘামে!

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

গ্যাসের দামে ভোক্তা ঘামে!

গোলাম মোর্তুজা ১:২৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৯, ২০১৯

print
গ্যাসের দামে ভোক্তা ঘামে!

এদেশে শুধু সান্তনা, সগৌরবে চলে প্রতারণা। থামাতে, কমাতে নেই অগ্রগতি, দেশ বাহাদুরের ঠিক থাকে না মতি আর গতি। সুনজর নেই দেশের ছা-পোষা কেরানির প্রতি। হাতে হারিকেন গ্রামের সরল খুশবু। বাবার অনেক ধন-সম্পত্তি করে ক্ষতি করে নিয়েছে সোনার হরিণসম চাকরি। চাকরির বয়স কাগজে-কলমে পনের হলেও, ঘটাতে পারেনি জীবনের মানোন্নয়ন। জীবনে শুধু খটকা খেয়েছে, ঝটকা পেয়েছে, মটকা ভেঙে যাওয়ার উপক্রমেও পড়েছে। বেতন বেড়েছে গাণিতিক হারে, পণ্যের দাম বেড়েছে জ্যামিতিক হারে আহারে! আর সে ঘায়ে সরল খুশবু সব সময়ই পড়ে দেনার দায়ে।

অহংকার করার মতো বাজেট এলে সরল খুশবু চলে ছলে-বেতালে। থাকে ভয়ে ভয়ে, বাজেটে কখন কোন জিনিসের দাম বাড়ে। একদিন বাজেট এলো ফিরে প্রত্যেকের ঘরে ঘরে-বেঘোরে। দাম বাড়ল ভোজ্যতেলের, তারপর গ্যাসের।

একদিন সরল খুশবুর একমাত্র স্ত্রী বলল, ‘শুনছ, গ্যাস যে ফুরাল, নিয়ে আসো, সঙ্গে নিও সবজি বাজার।’

কথা শুনে ভিতরটা থইথই করে উঠল। খুশবু সরল তমিজে বলল, এখন যে মাসের শেষে, দোকানদার দেবে কী গ্যাসে? অতঃপর খুশবু গায়ে জামা ঢুকিয়ে, অসহায়ত্বের খুশবু ছড়াতে-ছড়াতে, নিজেকে হারাতে-হারাতে পৌঁছালো দোকানে। দোকানির দিকে তাকিয়ে থেকে বলল, ‘ভাই, বাড়িতে গ্যাস শেষ, রান্না মাঝপথে।’

দোকানি ‘ভাই খবি’ খুশবুুর দিকে মুখ তুলে তাকালো, মুখ খুলল ‘এর আগের তিন মাসেরই শোধ করেননি বকেয়া, এখন আবার করছেন বায়না। আমি পারব না। এটা আমার ব্যবসা, টাকা দিয়ে আমাকেও কিনতে হয় মাল-সামানা। বকেয়া টাকা না দিলে, চলব কোন বলে।’

দোকানির প্রশ্নবাণে, সরল খুশবু আনচানে। বাড়ির রান্না হয়ে আছে বন্ধ, দোকানির কথাতে নেই ছন্দ। এখন তবে কী উপায়? কে হবে এ সময়ের সহায়? এমন ভাবনার দৌড়ে, সরল খুশবু যায় উড়ে। দোকানদার আবার বলে, ‘সাইডে সরেন, অন্য কাস্টমারকে আসতে দেন। পরে দেখছি, ব্যস্ত আছি।’

দোকানির নির্মোহ কথা শুনে আশ্বাসের পুবালি বাতাসের ঝাপটা লাগে খুশবুর উচাটন মনে। দোকানি ‘খুবি ভাই’ মেটাল খুশবুর জীবনের দায় পনের মিনিটের মাথায় ‘এবার দিলাম। আর একটা কথা, গ্যাসের দাম বাড়তি যথা। সামনের বেতনে শোধ করবেন সবটা।’ খুশবু ‘খুবি ভাই’কে কথা দিলে তুলে নিল তথা!