গ্যাস কথোপকথন

ঢাকা, রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গ্যাস কথোপকথন

তাজুল ইসলাম ১:০২ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৯, ২০১৯

print
গ্যাস কথোপকথন

মোখলেস হোসেন সম্প্রতি পালিয়েছেন পাগলা গারদ থেকে। বলেছেন নানা বিষয়ে। সাক্ষাৎকার : মুহা. তাজুল ইসলাম

গ্যাস নিয়ে আপনার অভিজ্ঞতা বলুন!
আর অভিজ্ঞতা! গ্যাসের সমস্যা তো কমছেই না। পেটভর্তি গ্যাস। মসলা খাওয়া তো একরকম ছেড়েই দিয়েছি কিন্তু লাভ হচ্ছে না!

দ্রব্যমূল্য নিয়ে যদি কিছু বলতেন।
কী আর বলব দুঃখের কথা! আগে যেই ট্যাবলেট নিত দুই টাকা, সেটা এখন পাঁচ টাকা। কী আর করব? ট্যাবলেট বাদ দিয়ে ইসুবগুলের ভুসি খাওয়া শুরু করলাম, সেইটার দামও এখন বাড়তি।

মাত্রাতিরিক্ত মূল্যের কথা বলছিলাম!
গ্যাসের মূল্য আছে নাকি? আগে বলবে তো! তোমার চাচি বলে আমার নাকি কোনো মূল্যই নাই। এখন তাকে বলতে পারব, কে বলেছে আমার মূল্য নেই? এই দেখো, আমার পেটভর্তি মূল্যবান জিনিস।

রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি...
গ্যাস আবার রান্না করে নাকি? কী সব আজগুবি কথা বলো!

গ্যাসের চুলায় তো রান্না করে।
ও এইটা আগে বলবে না? আমার বাড়িতে তো মাটির চুলা। গ্রামের মানুষ তো, তাই।
আমি কোনো দিন গ্যাসের চুলাই ব্যবহার করিনি। মাটির চুলায় আবার রান্না ভালো হয়। তোমার চাচি অনেক কিছু রান্না করতে পারে আলুভর্তা, সেমাইভর্তা, নুডুলসভর্তা!

এগুলো কেউ ভর্তা করে নাকি? গ্যাসের মূল্য নিয়ে কিছু বলার নেই?
বলার কিছুই নেই। বহুদিন পরে মানসিক হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছি। ছাড়া পেয়েছি বললে ভুল হবে, পালিয়েছি। এখন আবার একটু তাড়া আছে, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট আমার জন্য অপেক্ষা করছে। তার সঙ্গে জরুরি মিটিং আছে!