তিস্তার বালুচরে তরমুজ-মিষ্টি কুমড়ার চাষ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭

তিস্তার বালুচরে তরমুজ-মিষ্টি কুমড়ার চাষ

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি ৪:৩৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৫, ২০২১

print
তিস্তার বালুচরে তরমুজ-মিষ্টি কুমড়ার চাষ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বেলকা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর কুল ঘেষে জেগে ওঠা প্রত্যন্ত চরে বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে চাষ হচ্ছে তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়া। কৃষকদের রাতদিন চলছে মিষ্টি কুমড়া ও তরমুজ চাষের ব্যপক কর্মযজ্ঞ। তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়ার বাম্পার ফলনের আশা করছে চাষিরা।

জানা গেছে, বেলকা ইউনিয়নের নবাবগঞ্জ ব্লকের বেলকা নবাবগঞ্জ ও কিশামত সদর গ্রামের তিস্তা নদীর প্রত্যন্ত বালুচরে প্রায় ১'শ ৮০ বিঘা জমিতে সারিবদ্ধ ভাবে গর্ত করে জৈব সার দিয়ে তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়ার বীজ রোপণ করেন চাষিরা। 

এরপর নিয়মিত সেচ দিচ্ছেন তারা। চারা বড় হলে তা বালুর উপরে বাড়তে থাকে। ৩-৪ মাসের মধ্যেই ফলন ধরবে গাছে। এখানকার এক একটি তরমুজ ওজনে ৭-১০ কেজি পর্যন্ত হয়। প্রতি পিস তরমুজ ৬০-৮০ টাকা হারে গত বছর বিক্রি হয়েছে। এছাড়া, মিষ্টি কুমড়া ৩-৪ কেজি ওজনের হয়।

মিষ্টি কুমড়া গত বছর প্রতি পিস ৪০-৬০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এবার আরও বেশি দামে তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়া বিক্রি হবে বলে আশা করছে চাষিরা।

কৃষক গোলজার হোসেন জানান, তারা তিনজন মিলে সম্মিলিতভাবে প্রায় ১'শ ৮০ বিঘা জমিতে তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়ার চারা লাগিয়েছেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে গত বছরের চেয়ে ফলন ভালো হওয়ার আশা করছেন তিনি।

আব্দুল করিম জানান, তিনজন মিলে রাত দিন কঠোর পরিশ্রম করছি। ইতোমধ্যে গাছে ফুল এসেছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ফলন আসবে।

বেলকা নবাবগঞ্জ ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জামিউল ইসলাম সরকার বলেন, প্রত্যন্ত বালুচরে তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়ার ফুল এসেছে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ফলন আসবে। আমরা কৃষি বিভাগ থেকে নিয়মিত বিভিন্ন পরামর্শ দিচ্ছি।

উপজেলা কৃষি অফিসার সৈয়দ রেজা-ই মাহমুদ বলেন, তিস্তার প্রত্যন্ত বালুচরে সবজিসহ তরমুজ ও মিষ্টি কুমড়ার বাম্পার ফলন পাওয়া সম্ভব। তবে সেচ সুবিধা ব্যবস্থা করতে হবে। কৃষি অফিসাররা সব সময় তাদের পাশে আছে।