পাবনায় পেঁয়াজ সংরক্ষণাগারের দাবি

ঢাকা, শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০ | ১৪ চৈত্র ১৪২৬

পাবনায় পেঁয়াজ সংরক্ষণাগারের দাবি

আবদুল জব্বার, পাবনা ৭:২৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০২০

print
পাবনায় পেঁয়াজ সংরক্ষণাগারের দাবি

পেঁয়াজ ভান্ডার খ্যাত পাবনায় চলতি মৌসমে পেঁয়াজের ভালো ফলন হয়েছে। পেঁয়াজ সংরক্ষণে সরকারি সংরক্ষণাগার গড়ে তোলার দাবি করেছেন চাষিরা। অপরদিকে আবহাওয়া অনূকূল থাকায় ভালো ফলনের পরও ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির খবরে মহাদুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন চাষিরা।

মার্চের শুরুতেই বাজারে উঠতে শুরু করেছে চারা পেঁয়াজ, কমেছে দাম। চলতি মৌসুমে জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী জমিতে আবাদ ও অনূকুল আবহাওয়ায় ফলন পর্যালোচনা আশাব্যাঞ্জক হওয়ায় কৃষি বিভাগের প্রত্যাশা এ বছর পেঁয়াজ উৎপাদন সব অতীত রেকর্ড ছাড়াবে।

মার্চের মাঝামাঝি পুরোদমে এই পেঁয়াজ বাজারে এলে পেঁয়াজের সংকট থাকবে না। এমনকি রমজানেও পেঁয়াজের কোন সংকট হবে না। তবে ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে আমদানী বন্ধ ও সংরক্ষণে সরকারি সহযোগীতার দাবি করেছেন পেঁয়াজ চাষিরা। পাবনা কৃষি বিভাগ জানায়, দেশের মোট উৎপাদিত পেঁয়াজের এক তৃতীয়াংশ সরবরাহ হয় পাবনা থেকে। চলতি মৌসুমে পাবনার গাজনার বিল, ঘুঘুদহ বিলসহ নয় উপজেলার প্রায় ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ আবাদ হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর, খামারবাড়ী, পাবনার উপপরিচালক আজাহার আলী জানান, চলতি মৌসুমে যে ভালমানের পেঁয়াজ ব্যাপক পরিমাণে উৎপাদন হয়েছে তাতে রমজানেও পেঁয়াজ আমাদানীর প্রয়োজন নেই। কৃষিবিভাগ পেঁয়াজে দেশকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ উৎপাদন, প্রশিক্ষণ, সহযোগীতাসহ নানা উদ্যোগ নিয়েছে। আগামীতে উৎপাদন বাড়িয়ে আমদানী নির্ভরতা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার পরিকল্পনা সরকার নিয়েছে।