পেঁয়াজের বিকল্প ‘চিভ’

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

পেঁয়াজের বিকল্প ‘চিভ’

গাজীপুর প্রতিনিধি ১০:৩২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৫, ২০১৯

print
পেঁয়াজের বিকল্প ‘চিভ’

দেশজুড়ে পেঁয়াজের লাগামছাড়া দৌড়ে নাভিশ্বাস উঠছে ক্রেতার। চলছে নানা সমালোচনা। এর মাঝেই পেঁয়াজের বিকল্প হিসেবে ‘চিভ’ নামের এক মশলা চাষে সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন দেশের কৃষিবিজ্ঞানীরা। এটি সারা বছর চাষ করা যায়। একবার রোপণ করলে একই গাছ থেকে সারা বছর ফসল মেলে। স্বাদে ও মানে পেঁয়াজের চেয়ে উন্নত। ইতোমধ্যে দেশে এটি চাষ শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে গাজীপুরের কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট বারির মশলা গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. নূর আলম চৌধুরী বলেন, চিভের স্বাদ অনেকটা পেঁয়াজের মতো। বাংলাদেশে এই মশলার চাষযোগ্য উচ্চফলনশীল জাত ‘বারি চিভ-১’ ইতোমধ্যেই অবমুক্ত করা হয়েছে। এর পাতা লিনিয়ার আকৃতির, ফ্ল্যাট, কিনারা মসৃণ, বাল্ব লম্বাটে। এর ফুল সাদা-পার্পল বর্ণের। উৎপত্তিস্থল সাইবেরিয়ান-মঙ্গোলিয়ান ও নর্থ-চায়না অঞ্চল।

ড. আলম বলেন, চারা লাগানোর ৬৫-৭০ দিনের মধ্যে ফসল সংগ্রহ শুরু হয়। এর পাতা, কাণ্ড ও কাঁচা ফুল মশলা হিসেবে ব্যবহৃত হয়। একবার পাতা-কা- কেটে নিলে আবার গজায়। আঙিনা বা টবেও চাষ করা যায়। বগুড়াসহ কয়েকটি এলাকায় পেঁয়াজের বিকল্প ‘চিভ’

কৃষকদের মাধ্যমে এর চাষ সম্প্রসারণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। পেঁয়াজ উৎপাদনকারী এলাকা পাবনা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, মাগুরা, বগুড়া ও লালমনিরহাট এলাকায় চিভ চাষের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

ড. আলম জানান, বাংলাদেশে চিভের চাষযোগ্যতার গবেষণায় নামেন তারা। গবেষণা সহযোগী ছিলেন ড. মোস্তাক আহমেদ, ড. আলাউদ্দিন খান ও মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। গবেষণায় সাফল্য আসে। ২০১৮ সালে আমরা বারি চিভ-১ অবমুক্ত করা হয়। এখন চাষ সম্প্রসারণের পর্যায়ে রয়েছে।

চিভের গুণাগুণ সম্পর্কে কৃষিবিজ্ঞানী ড. আলম বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এটি একটি জনপ্রিয় মশলা। এটা হজমে সাহায্য করে, রোগ নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়া এতে ক্যান্সার প্রতিরোধী গুণাগুণ রয়েছে। আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন বি-১, ভিটামিন বি-২, নায়াসিন, ক্যারোটিন ও খনিজ উপাদান।