কৃষকের হাসিমুখ

ঢাকা, শনিবার, ২৫ মে ২০১৯ | ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

কৃষকের হাসিমুখ

এইচ এম আলমগীর কবির, সিরাজগঞ্জ ৩:৩৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৫, ২০১৯

print
কৃষকের হাসিমুখ

দিগন্তজুড়ে সবুজের সমারোহ। মৃদ বাতাসে দোল খাচ্ছে সবুজ ধানের পাতা। এ যেন নীল যমুনার বুকে সবুজ সমুদ্রের ঢেউ। সবুজের ঢেউয়ের সঙ্গেই দুলে ওঠে কৃষকের হৃদয়। উঠোন ভরা সোনালী ধানের যে স্বপ্নে বুনে এসেছিলেন, তা যেন সত্যি হয়ে হাতছানি দিচ্ছে কৃষকের জীর্ণ কুটিরে। যমুনায় জেগে ওঠা চরে জমিতে ধান চাষ করেছেন কৃষকেরা। মৃদ হাওয়া দোল খাওয়া সবুজ পাতাগুলোর মত তাদের হৃদয়ও যেন দুলে দুলে উঠছিল।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কাওয়াকোলা, খোকশাবাড়ি ও ছোনগাছা ইউনিয়নের যমুনার চরাঞ্চলের গ্রামগুলোতে গিয়ে এমন চিত্র দেখা যায়। চরাঞ্চলের মানুষগুলোর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, একসময় মাঠভরা ফসল, গোলাভরা ধান আর যমুনার রূপালি মাছ ছিল চরের মানুষের ঘরে ঘরে।

কাওয়াকোলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল আলীম ভুইয়া বলেন, চরাঞ্চলের জমি জেগে ওঠায় হতদরিদ্র চরবাসীর ভাগ্য বদলে গেছে। এখন আর চরের মানুষের অভাব-অনটন নেই।

সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে ধীরে ধীরে আধুনিকতার ছোঁয়াও পৌছে যাচ্ছে চরাঞ্চলে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আব্দুর রশিদ জানান, সিরাজগঞ্জের চরাঞ্চলে প্রায় ৪১ হাজার হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ হয়। ক্রসবার বাধ নির্মিত হবার পর আরও ৪ হাজার হেক্টর জমি নতুন করে চাষযোগ্য হয়েছে।