বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
এক মাসেই ধানে শীষ
কাজল সরকার, হবিগঞ্জ
Published : Tuesday, 13 February, 2018 at 9:10 PM
এক মাসেই ধানে শীষ
অধিক ফলনের আশায় হবিগঞ্জের শতাধিক কৃষক এবার জিরাশাইল ধান চাষ করেছিলেন। কিন্তু ধান লাগানোর এক মাসের মধ্যে শীষ চলে আসায় বিপাকে পড়েছেন তারা। বীজের ডিলার ও কৃষি অফিসে গিয়েও করণীয় সম্পর্কে কোনো তথ্য পাচ্ছেন না তারা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ব্রাদার্স সিডস নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান উচ্চফলনশীল ধান জিরাশাইল সুপার ধানটি উদ্ভাবন করে। মাঠ পর্যায়ে এ ধান আবাদের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি স্থানীয়ভাবে ডিলার নিয়োগ দেয়। বাজারে এ ধানের বীজ বিক্রিও শুরু করে। দু কেজির মোড়কে প্রতি প্যাকেট বীজের দাম ছিল ২০০ টাকা। বীজের দাম ও অধিক ফলনের আশায় অনেক কৃষকই আকৃষ্ট হন। চলতি বোরো মৌসুমে হবিগঞ্জের অনেক কৃষক এ জাতের ধান রোপণ করেন। কিন্তু চারা লাগানোর এক মাস পার হওয়ার আগে চারাগুলোয় শীষ চলে এসেছে। নির্দিষ্ট সময়ের আগেই শীষ আসায় ধান গাছগুলোও মরে যাচ্ছে।
কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, জীবনকাল অনুযায়ী ব্রি ধান-২৯ হলো ১৬০ দিনের একটি জাত। ব্রি ধান-২৮, ১৪০ দিনের। এসব জাতের ধানে শীষ আসে ৯০ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে। এর আগে চারায় শীষ এলে ফলন না হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। আর এক মাসের মধ্যে ধানে শীষ এলে ফলন পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না বললেই চলে।
এক মাসেই ধানে শীষ
সরেজমিন গুঙ্গিয়াজুড়ি হাওরে গিয়ে দেখা যায়, চলতি মৌসুমে চাষিরা কয়েক হাজার বিঘায় জিরাশাইল সুপার নামে উচ্চফলনশীল জাতের বোরো ধান আবাদ করেছেন। কিন্তু চারা রোপণের এক মাসের মধ্যে ধানের শীষ এসে গেছে। ফলে বিপাকে পড়েছেন তারা।
হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পইল গ্রামের কৃষক নূরুল হক জানান, গত বছর বানের পানিতে তাদের সব ধান ডুবে যায়। ধার-ঋণ করে বছরটি কাটিয়েছে। ঋণ মাথায় নিয়ে এবার পাঁচ একর জমিতে বোরো আবাদ করেন। কিন্তু সব ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তিনি আরও জানান, শহরের চৌধুরী বাজারে নারিকেল হাটার জিরাশাইল বীজের ডিলার শামীম এন্টারপ্রাইজের কাছে তিনি বীজ কিনতে যান। তাকে অধিক ফলনশীল জিরাশাইল সুপার জাতের বীজ দেওয়া হয়। পুরো পাঁচ একর জমিতে তা চাষ করেছেন। একই গ্রামের কৃষক শাহ আলম জানান, ধানে শীষ চলে আসায় চারাগুলো মরে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। মারা যদি নাও যায় তাহলে ভালো ফলন পাওয়া যাবে না।
বাহুবল উপজেলার আইয়ুব আলী জানান, তিনিও এবার জিরাশাইল সুপার ধান আবাদ করেছেন। নির্দিষ্ট সময়ের আগে শীষ বের হওয়ার বিষয়টি স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন। কিন্তু করণীয় সম্পর্কে কোনো পরামর্শ পাননি।
কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-সহকারী ও উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মাহবুবুল হক জানান, বাজারে অনেক কোম্পানি উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান বীজ বিক্রি করছে। এসব জাতের কোনো অনুমোদন আছে কি না জানা নেই। তবে উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান বীজ কেনার আগে কৃষকরা অবশ্যই কৃষি বিভাগের পরামর্শ নিয়ে বীজ কেনার কথা বলা হয়েছিল। আমরা সরেজমিন মাঠে গিয়ে বিষয়টি দেখব।
ব্রাদার্স সিডসের হবিগঞ্জ জেলা ডিলার শামিম আহমেদ জানান, কৃষকরা আমাকে বিষয়টি জানিয়েছে। আমিও সরেজমিন মাঠে যাব। কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হলে কোম্পানির সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টা করব।  
ব্রাদার্স সিডস প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী ও পরিচালক মো. বখতিয়ার উদ্দিন মণ্ডলের সঙ্গে এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে কথা হয়। তিনি জানান, জিরাশাইল সুপার একটি উচ্চফলনশীল জাতের ধান। এর আয়ুষ্কাল ১৪০ থেকে ১৪৭ দিন। বীজতলায় বীজ বপন থেকে ধান কাটা পর্যন্ত উল্লিখিত সময় লাগবে। যদি বীজতলায় চারা রেখে বয়স বাড়িয়ে জমিতে চারা লাগানো হয় আর নির্ধারিত সময়েই ধানের শীষ বের হয় তাহলে প্রতিষ্ঠানের কিছু করার নেই। আর বীজ যদি না গজায় তা হলে এর ক্ষতিপূরণ প্রতিষ্ঠান বহন করবে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: আহসান হাবীব
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত খোলাকাগজ ২০১৬
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বসতি হরাইজন এ্যাপার্টমেন্ট নং ১৮/বি, হাউজ-২১, রোড-১৭, বনানী বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১২১৩।
ফোন : +৮৮-০২-৯৮২২০২১, ৯৮২২০২৯, ৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৬, ৯৮২২০৩৭, ফ্যাক্স: ৯৮২১১৯৩, ই-মেইল : kholakagojnews@gmail.com
Developed & Maintenance by i2soft
var _Hasync= _Hasync|| []; _Hasync.push(['Histats.start', '1,3452539,4,6,200,40,00010101']); _Hasync.push(['Histats.fasi', '1']); _Hasync.push(['Histats.track_hits', '']); (function() { var hs = document.createElement('script'); hs.type = 'text/javascript'; hs.async = true; hs.src = ('//s10.histats.com/js15_as.js'); (document.getElementsByTagName('head')[0] || document.getElementsByTagName('body')[0]).appendChild(hs); })();