বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭
শুভ জন্মদিন কবি হাফিজ উদ্দীন আহমদ
খোলা কাগজ ডেস্ক
Published : Sunday, 10 September, 2017 at 3:14 PM
শুভ জন্মদিন কবি হাফিজ উদ্দীন আহমদ
ট্রাফিক পুলিশের মতো হাত তুলে
আমাকে থামালো গোলাপ
মাঝরাতে হাত তুলে ডাকলো গোলাপ
ইশারায় আমাকে ডেকে নিলো  চুপে কাছে
আর দেখলো পাপড়ি খুলে সুরভিত বুক
বললো সে নিভৃতে দেখো একবার
কি গভীর দুঃখ জমা আছে এইখানে
সুরভিত সাথে যদি ভাগ নিতে তার। (ক্রুশবিদ্ধ ভালোবাসা)
বাংলাদেশের সাহিত্য জগতে হাফিজ উদ্দীন আহমদ একটি বিশিষ্ট নাম। ষাটের দশকে কবিতার জগতে পা রেখেছিলেন তিনি। লিখেন কম তাও নিভৃতচারী কিন্তু তার প্রতিটি কবিতা পাঠক-পাঠিকার হৃদয় স্পর্শ করে যায়।
কবিতার পাশাপাশি তিনি গদ্য, প্রবন্ধ, ছড়া ও গল্প লিখেন। ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, আমেরিকা ও বাংলাদেশ থেকে তার চিকিৎসা বিষয়ক মূল্যবান প্রবন্ধ প্রকাশ পেয়েছে অসংখ্য। বিলাতের বার্কার পাবলিকেশন্স তার বহুলেখার আন্তর্জাতিক কপি-রাইট কিনে নিয়েছে। মহামারী সার্স (SARS) বিষয়ক পৃথিবীর প্রথম গ্রন্থ (মরণ ব্যাধি সার্স), দুই খণ্ডে লেখা বাংলায় সার্জারি বিষয়ক প্রথম মৌলিক গ্রন্থ (অস্ত্রোপচারের কলাকৌশল) সহ তার অসংখ্য বই জেনেভার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, বাংলা একাডেমী, শিশু একাডেমী, ভারতের একাডেমিক পাবলিশার্স ইত্যাদি বহু প্রকাশনা সংস্থা থেকে প্রকাশিত হয়ে পাঠক প্রিয়তা পেয়েছে।
২০০৪ সালে বাংলা একাডেমী তাকে শ্রেষ্ঠবিজ্ঞান লেখক পুরস্কারে ভূষিত করেছে। সেই অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রখ্যাত প্রয়াত কবি, সাংবাদিক ও গবেষক সাযযাদ কাদির বলেন, ডা. হাফিজ কেবল বিজ্ঞান লেখকই নয় তিনি একজন অসাধারন কবি। তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সংগে চিকিৎসা শাস্ত্রের জটিল বিষয়ে ধারাবাহিকভাবে লিখে যাচ্ছেন (লেখা, বা. একাডেমীর মুখপত্র আগস্ট ২০০৪)। মানব জমিন পত্রিকায় তিনি মন্তব্য করেছিলেন, লেখা লেখির সব শাখাতেই ডা. হাফিজের নৈপূণ্য মুগ্ধ হওয়ার মতো .... অথচ ওর কবিতা ছোট গল্প, উপন্যাসের মনোহারিত্ব থেকে বঞ্চিত এ দেশের অনেক পাঠক। এখানে ওর অসাধারণ কবিত্বের একটি নমুনা না তুলে ধরে পারছি না। উপদ্রুত গোলাপ বইয়ের প্রথম কবিতা ফসল :
আমি এক আনাড়ি কৃষক
কি করে যে করি চাষবাস
দুনিয়াটা হাতে নিয়ে ভাবি
কোথা পাবো তরুপের তাস?
শরতের পেঁজা মেঘ দিয়ে
জানালার পর্দা বানাই
লাঙলের ফলা হাতে নিয়ে
স্বপ্নের ধান বুনে যাই
সকাতরে প্রেম চাই, চাই নির্মল
সজল কৃষ্ণচূড়া, ভালবাসা ফল
ফসল তো ফলে না, শুধু
মাঠ থাকে চৌচির হয়ে
মাটিটা উর্বর হতো
নদী হয়ে যদি যেতে বয়ে। (মানব জমিন ১৪ অক্টোবর, ২০০৫)

ডা. হাফিজ মূলতঃ প্রেমের কবি। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি একজন শল্যবিদ, মূত্র-রোগ বিশেষজ্ঞ ও মনোয়ারা সিকদার মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ও অধ্যক্ষ। পৈত্রিক নিবাস হবিগঞ্জের বাহুবল থানার অন্তর্গত শাহাপুর গ্রামে। মা মরহুমা এলিজা বেগম এবং বাবা মরহুম ডা. আইয়ূব মিয়া (প্রাক্তন স্বাস্থ্য পরিচালক)। তার দ্বিভাষিক বর্নবাদ বিরোধী গল্প ‘সিগারেট’ পড়ে প্রেসিডেন্ট নেলসন ম্যান্ডেলা তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। চিকিৎসা শাস্ত্রের ব্যবহারিক ক্ষেত্রে সর্ব প্রথম সফল বাংলা প্রচলনের অগ্রদূত ডা. হাফিজকে সম্মান জানিয়ে তার সাক্ষাতকার প্রচার করেছে জার্মানীর ডয়সেভিলি রেডিও। ছাত্র জীবনে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ষিকী সম্পাদক, মীর মোশাররফ হোসেন প্রতিষ্ঠিত ‘হিতকরী’ পত্রিকার শিশু বিভাগের সম্পাদক ডা. হাফিজকে লেখা পাঠিয়ে পত্র দিয়েছিলেন প্রখ্যাত সাহিত্যিক বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায় (বনফুল)। আজ তার জন্মদিনে এই অসাধারন প্রতিভাবান কবি, সাহিত্যিক তথা বিজ্ঞান লেখককে জানাই অকৃত্রিম শুভেচ্ছা।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: আহসান হাবীব
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত খোলাকাগজ ২০১৬
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বসতি হরাইজন এ্যাপার্টমেন্ট নং ১৮/বি, হাউজ-২১, রোড-১৭, বনানী বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১২১৩।
ফোন : +৮৮-০২-৯৮২২০২১, ৯৮২২০২৯, ৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৬, ৯৮২২০৩৭, ফ্যাক্স: ৯৮২১১৯৩, ই-মেইল : kholakagojnews@gmail.com
Developed & Maintenance by i2soft
var _Hasync= _Hasync|| []; _Hasync.push(['Histats.start', '1,3452539,4,6,200,40,00010101']); _Hasync.push(['Histats.fasi', '1']); _Hasync.push(['Histats.track_hits', '']); (function() { var hs = document.createElement('script'); hs.type = 'text/javascript'; hs.async = true; hs.src = ('//s10.histats.com/js15_as.js'); (document.getElementsByTagName('head')[0] || document.getElementsByTagName('body')[0]).appendChild(hs); })();