বুধবার, ২৬ জুলাই, ২০১৭
নিয়ামতপুর-সারাইগাছী সড়ক : ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন
আব্দুর রউফ পাভেল, নওগাঁ
Published : Monday, 17 July, 2017 at 11:15 AM
নিয়ামতপুর-সারাইগাছী সড়ক : ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন
নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার নিয়ামতপুর-সারাইগাছী সড়কটি খানাখন্দে ভরে গেছে। তাছাড়া বিভিন্ন জায়গায় কার্পেটিং ও ইট-খোয়া উঠে গিয়ে ভাঙাচোরা, ছোট-বড় গর্তের এই সড়কে হাঁটাও দায়। ফলে দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় বাধ্য হয়ে বর্ণনাতীত ভোগান্তি সয়ে প্রতিনিয়ত এ পথে যাতায়াত করতে হচ্ছে যাত্রীদের।
সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) অধীনে ২০০৫-০৬ অর্থবছরে নিয়ামতপুর উপজেলা সদর থেকে পোরশা উপজেলার সারাইগাছী পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার সড়ক পাকা হয়। পরবর্তীতে ২০১৫ সালে এই সড়কটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে আসে।
সরেজমিন সড়কটি ঘুরে দেখা গেছে, নিয়ামতপুর উপজেলা সদর থেকে পোরশা উপজেলার সারাইগাছী মোড় পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার সড়কের বেশিরভাগ অংশই খানাখন্দে ভরা। রাস্তাটির অনেক জায়গায় কার্পেটিং উঠে গিয়ে ছোট-বড় অংসখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে এসব গর্তের ওপর দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। এতে করে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।
স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নিয়ামতপুর, পোরশা ও বিভাগীয় শহর রাজশাহীতে চলাচলে সড়কটি দিয়ে পোরশা উপজেলার নিতপুর, মর্শিদপুর ও গাঙ্গুর, নিয়ামতপুর উপজেলার সদর, হাজিনগর ও চন্দনগর ইউনিয়নের প্রায় দেড় লাখ মানুষ নির্ভরশীল। এছাড়াও সড়কটির বেহালদশার কারণে নিয়ামতপুর উপজেলা সদর, উপজেলার টিএলবি, সাংশইল ও শিবপুর, পোরশা উপজেলার নিতপুর ও সারাইগাছী বাজারে কৃষিপণ্য বেচাকেনা করতে স্থানীয় বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়লেও কর্তৃপক্ষ সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের।
নিয়ামতপুর উপজেলার হাজিনগর ইউনিয়নের পাঁচপুকুরিয়া গ্রামের বাসিন্দা বলরাম বর্মণ, জহুরুল ও নিতাই চন্দ্র বলেন, রাস্তাটি পাকা হওয়ার পর থেকে একবারও সংস্কার করা হইনি। সড়কটি সংস্কার না করায় গত ছয়-সাত বছর ধরে সীমাহীন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তাছাড়া খান্দাখন্দে ভরে গেছে পুরো সড়ক। ফলে সড়ক দিয়ে হাঁটাও কষ্টকর হয়ে পড়েছে।
নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স চালক জহুরুল হক বলেন, ‘ওই সড়কে যাতায়াত করলে গাড়ির অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। গর্তের কারণে ঝাঁকুনির কারণে রোগীদেরও কষ্ট হয়। অনেক সময় ৩০ মিনিটের রাস্তা এক থেকে দেড় ঘণ্টা পর্যন্ত লেগে যায়।
নিয়ামতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হক বলেন, জেলা সমন্বয়সভার মিটিংয়ে রাস্তাটি সংস্কার করার কথা একাধিকবার উঠিয়েছি। স্থানীয় এমপিকেও রাস্তাটি সংস্কারে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছি। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও রাস্তাটি সংস্কার হচ্ছে না। এলাকাবাসীকে দুর্ভোগ থেকে মুক্তি দেওয়ার জন্য রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার করা দরকার।
নওগাঁর সওজ নির্বাহী প্রকৌশলী হামিদুল হক বলেন, ২০১৫ সালে নওগাঁ জেলার তিনটি সড়ক (নিয়ামতপুর-সারাইগাছী, বদলগাছী-পাহাড়পুর ও রাণীনগর-আবাদপুকুর) এলজিইডি থেকে সওজের অধীনে দেওয়া হয়। তাছাড়া সওজের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর রাস্তা তিনটি সংস্কার ও প্রশস্ত করার জন্য তিনটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। চলতি অর্থবছরে এই প্রকল্প তিনটি অনুমোদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রকল্প অনুমোদন হলে নিয়ামতপুর সারাইগাছীসহ সওজের অধীনে আসা নতুন তিনটি রাস্তা সংস্কার কাজ শুরু করা হবে।  তবে কবে নাগাদ সংস্কারকাজ শুরু হতে পারে এ ব্যাপারে তিনি কোনো নিশ্চিয়তা দিতে পারেননি।





সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: আহসান হাবীব
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত খোলাকাগজ ২০১৬
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বসতি হরাইজন এ্যাপার্টমেন্ট নং ১৮/বি, হাউজ-২১, রোড-১৭, বনানী বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১২১৩।
ফোন : +৮৮-০২-৯৮২২০২১, ৯৮২২০২৯, ৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৬, ৯৮২২০৩৭, ফ্যাক্স: ৯৮২১১৯৩, ই-মেইল : kholakagojnews@gmail.com
Developed & Maintenance by i2soft
var _Hasync= _Hasync|| []; _Hasync.push(['Histats.start', '1,3452539,4,6,200,40,00010101']); _Hasync.push(['Histats.fasi', '1']); _Hasync.push(['Histats.track_hits', '']); (function() { var hs = document.createElement('script'); hs.type = 'text/javascript'; hs.async = true; hs.src = ('//s10.histats.com/js15_as.js'); (document.getElementsByTagName('head')[0] || document.getElementsByTagName('body')[0]).appendChild(hs); })();