বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
চাঁই বিক্রির ধুম : ব্যস্ত কারিগররা
মো. জামাল উদ্দিন, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর)
Published : Monday, 17 July, 2017 at 11:09 AM
চাঁই বিক্রির ধুম : ব্যস্ত কারিগররা
দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে নদী-নালা ও জমিতে পানি জমায় চাঁই বিক্রির ধুম পড়েছে উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে। কৃষকরা মৌসুমের আমন আবাদ শুরু করে দিয়েছেন। চলছে চারা রোপণের কাজ। বৃষ্টির পানিতে নদী-নালা, খাল-বিল এখন থই থই করছে। ফলে উপজেলার নশরতপুর, সাতনালা, আলোকডিহি, সাইতীড়া, বিন্যাকুড়ি, তেঁতুলিয়া ও গছাহারসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা মিলছে কাঙ্ক্ষিত চাই দিয়ে মাছ ধরার দৃশ্য।
এদিকে উপজেলার ভুষিরন্দর, বিন্যাকুড়ি, অকড়াবাড়ি, কারেন্টহাট, রাণীরবন্দর হাট ঘুরে দেখা গেছে, বাঁশের তৈরি মাছ ধরার চাই যা স্থানীয় ভাষায় ডাইরকির (চাঁই) পসরা সাজিয়ে বসে আছেন কারিগররা। ফলে নিপুণ হাতের তৈরি এসব চাঁই বিক্রির ধুম পড়ে গেছে।
চাঁই বিক্রির ধুম : ব্যস্ত কারিগররা
কারিগর পরিমল ও দেবেন জানান, চাঁই তৈরিতে বাঁশ কেনা থেকে শুরু করে এ কাজে সহযোগিতা করে বাড়ির গৃহিণী থেকে শুরু করে ছেলে-মেয়েরা। তাছাড়া বাঁশের এসব চাঁই তৈরিতে প্রকার ভেদে খরচ পড়ে ৫০ থেকে ১৫০ টাকা। আর তা বিক্রি হয় ২০০ থেকে ৫০০ টাকায়। গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে বেড়ে যায় চাঁই বিক্রি। আর এই চাঁই তৈরিতে খরচ বেড়ে যাওয়ায় আগের মতো লাভ হয় না। তবে হঠাৎ করে বিক্রি বেড়ে যাওয়ায় তা পুষিয়ে নেওয়া যাচ্ছে। নশরতপুর বেলালপাড়া গ্রামের ছমুর আলী বলেন, বর্ষা মৌসুমে আমি প্রতিদিন চাঁই বসিয়ে ৫ থেকে ৭ কেজি দেশি মাছ ধরি। আর তা বিক্রি করি স্থানীয় রাণীরবন্দর হাটে।
রাণীরবন্দরের চাই ব্যবসায়ী লহ্মণ, গোড়া চন্দ্র, হেমচন্দ্রের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, গত এক সপ্তাহ আগে চাঁই বিক্রি তেমন একটা ছিল না। গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে কাঙ্ক্ষিত বৃষ্টিপাত হওয়ায় বর্তমানে প্রচুর চাঁই বিক্রি হচ্ছে। আমরা দিনরাত পরিশ্রম করে চাঁই তৈার করেও প্রয়োজনীয় চাঁই সরবরাহ করতে পারছি না। তাই প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে পাইকারি দামে চাঁই কিনে বিভিন্ন হাটবাজারে বিক্রি করছি। তাছাড়া বাঁশের দাম বেশি হওয়ায় চাই বিক্রিতে আগের মতো লাভ হয় না। ফলে বর্তমানে প্রতিটি ছোট-বড় চাঁই বিক্রি করে ৪০ থেকে ৮০ টাকা করে লাভ হয়। এদিকে খাল-বিলে পর্যাপ্ত পানি থাকলেও দেশি মাছের আকাল হওয়ায় চাঁই বিক্রি অনেকাংশে হ্রাস পেয়েছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: আহসান হাবীব
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত খোলাকাগজ ২০১৬
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বসতি হরাইজন এ্যাপার্টমেন্ট নং ১৮/বি, হাউজ-২১, রোড-১৭, বনানী বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১২১৩।
ফোন : +৮৮-০২-৯৮২২০২১, ৯৮২২০২৯, ৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৬, ৯৮২২০৩৭, ফ্যাক্স: ৯৮২১১৯৩, ই-মেইল : kholakagojnews@gmail.com
Developed & Maintenance by i2soft
var _Hasync= _Hasync|| []; _Hasync.push(['Histats.start', '1,3452539,4,6,200,40,00010101']); _Hasync.push(['Histats.fasi', '1']); _Hasync.push(['Histats.track_hits', '']); (function() { var hs = document.createElement('script'); hs.type = 'text/javascript'; hs.async = true; hs.src = ('//s10.histats.com/js15_as.js'); (document.getElementsByTagName('head')[0] || document.getElementsByTagName('body')[0]).appendChild(hs); })();