বুধবার, ২৬ জুলাই, ২০১৭
পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক
নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ)
Published : Friday, 14 July, 2017 at 2:13 PM
পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক
সোনালি আঁশ হিসেবে খ্যাত এ দেশের প্রধান অর্থকরী ফসল পরিবেশবান্ধব পাটচাষে দিন দিন আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন নওগাঁর আত্রাইয়ে চাষিরা। ফলে ভরা মৌসুমেও পাটের দেখা মেলেনি উপজেলার হাটবাজারগুলোতে।
সরেজমিন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিভিন্ন সময়ে মূল্যপতন, উৎপাদন খরচ বেশি ও পচানোর পানির অভাবেই কৃষকরা পাট চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। তাছাড়া ৬০ এর দশকে দেশের খ্যাতমান পাটক্রয় কেন্দ্র ছিল আত্রাইয়ে। এক সময় উপজেলার র‌্যাালি ব্রাদার্স নামে বিখ্যাত সেই কেন্দ্র থেকে পাটক্রয় করে নৌপথে পাঠানো হতো দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জুটমিলে। সে সময় সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রতিদিন শত শত টন পাট ক্রয় করা হতো চাষিদের কাছ থেকে। ফলে ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তির নিশ্চয়তা নিয়ে কৃষকরাও ব্যাপকহারে পাটচাষে ঝুঁকে পড়তো। আর আত্রাই থেকে এ পাটগুলো নৌপথ ও রেলপথে নিয়ে যাওয়া হতো দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলা খুলনা, যশোরসহ বিভিন্ন জুটমিলে। এদিকে জনশ্রুতি আছে শুধু দেশেই নয় বরং আকাশপথে আত্রাইয়ের পাট রপ্তানি করা হতো সেই ইংল্যান্ডে। এখন আর আত্রাইয়ে আগের মতো পাট চাষ হয় না।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার এ উপজেলায় মাত্র ২১০ হেক্টর জমিতে পাটচাষ করা হয়েছে। পাটের মূল্য কমসহ নানাবিধ সমস্যার কারণে এবার কৃষকরা পাটচাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। এদিকে পাটের চাষ কম হওয়ায় জ্বালানি কাজে ব্যবহার্য পাটখড়ির মূল্য আকাশচুম্বী হয়েছে। ফলে মধ্যম আয়ের পরিবারে সৃষ্টি হয়েছে চরম ভোগান্তি।
উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের সামাদ মাস্টার বলেন, ৬০-এর দশকে উত্তরাঞ্চলের মধ্যে আত্রাই ছিল পাটের জন্য বিখ্যাত। সে সময় আমরা ব্যাপকহারে পাট চাষ করতাম। পাটের ন্যায্যমূল্যও পেতাম। বর্তমানে উৎপাদন খরচ বেশি অথচ মূল্য কম হওয়ায় আমরা পাটচাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছি।
ভবানিপুর গ্রামের কৃষক আজাদ আলী প্রাং বলেন, গত দু’বছর থেকে পাটচাষ করে পচানোর পানির অভাবে আমাদের চরম বিপাকে পড়তে হয়েছে। এ জন্য এবার পাটচাষ করিনি। তাই ওই জমিগুলোতে এবার ধানসহ অন্যান্য আবাদ করে লাভবান হয়েছি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কে এম কাউছার হোসেন বলেন, বিগত বছরগুলোতে পাটের বাজার মন্দ থাকায় এই ফসলের প্রতি চাষিদের আগ্রহ কমে গিয়েছিল। বর্তমান সরকার খাদ্যদ্রব্যসহ বিভিন্ন পণ্যে পরিবেশবান্ধব পাটের মোড়ক ব্যবহার করায় বর্তমানে পাটের উৎপাদন ও বাজারদর ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে। ফলে এবার প্রান্তিক পর্যায়ের চাষিদেরও পাটচাষের আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাছাড়া চলতি খরিফ মৌসুমে চাষিদের রোগ প্রতিরোধ সম্পর্কে কৃষকদের গঠনমূলক পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: আহসান হাবীব
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত খোলাকাগজ ২০১৬
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বসতি হরাইজন এ্যাপার্টমেন্ট নং ১৮/বি, হাউজ-২১, রোড-১৭, বনানী বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১২১৩।
ফোন : +৮৮-০২-৯৮২২০২১, ৯৮২২০২৯, ৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৬, ৯৮২২০৩৭, ফ্যাক্স: ৯৮২১১৯৩, ই-মেইল : kholakagojnews@gmail.com
Developed & Maintenance by i2soft
var _Hasync= _Hasync|| []; _Hasync.push(['Histats.start', '1,3452539,4,6,200,40,00010101']); _Hasync.push(['Histats.fasi', '1']); _Hasync.push(['Histats.track_hits', '']); (function() { var hs = document.createElement('script'); hs.type = 'text/javascript'; hs.async = true; hs.src = ('//s10.histats.com/js15_as.js'); (document.getElementsByTagName('head')[0] || document.getElementsByTagName('body')[0]).appendChild(hs); })();